ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম ও সেভিংস একাউন্ট চার্জ [বিস্তারিত তথ্য]

প্রিয় বন্ধুরা আজকের পোস্টটিতে আমরা ডাচ বাংলা একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে আলোচনা করব। আপনারা যদি ডাচ বাংলা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান তাহলে পোস্টটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন।
ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম
পোস্টসূচিপত্রঃডাচ বাংলা ব্যাংক বাংলাদেশের একটি লিডিং ব্যাংক। এই ব্যাংকে একাউন্ট খোলা অনেক সহজ একটি কাজ। যেটা অন্যান্য সকল ব্যাংকের থেকে তুলনামূলক অনেক সহজ একটি কাজ।

ভূমিকা 

দেশের ব্যাংকিং ক্ষেত্রে ডাচ বাংলা ব্যাংক ব্যাংকিং এর একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই ডাচ বাংলা ব্যাংকের যাত্রা শুরু হয় ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ এবং নেদারল্যান্ডের যৌথ উদ্যোগে। ডাচ বাংলা ব্যাংকের বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলায় সর্বোমোট ২১০ টি শাখা রয়েছে। যার জন্য আপনি দেশের যেকোন প্রান্তেই থেকে লেনদেন করতে পারবেন। এই লেনদেনের জয় অবশ্যই একটি ডাচ বাংলার একাউন্ট লাগবে।
আপনি যদি আজকের এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকেন তাহলে আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে, ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম, ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে এই সকল সহ আরো অনেক কিছু সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্টের প্রকারভেদ

ডাচ বাংলা ব্যাংকের অধীনে কতগুলো একাউন্ট খুলতে পারবেন। আর কোন কোন একাউন্ট খুলতে পারবেন। এ নিয়ে আপনারা বরাবরই দ্বিধাগ্রস্থ থাকেন। এখন আপনারা জানতে পারবেন ডাচ বাংলা ব্যাংকের একাউন্টের প্রকারভেদ গুলো সম্পর্কে। তো চলুন বন্ধুরা এই বিষয়ে বিস্তারিত জানি।

আপনি সাধারণত ডাচ বাংলা ব্যাংকের অধীনে দুই রকমের ব্যাংক একাউন্ট খোলার সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। এ দুই ধরনের ব্যাংক একাউন্ট গুলো হলঃ
  • ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট
  • ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিংস একাউন্ট
এই দুটি অ্যাকাউন্ট হলো ডাচ বাংলা ব্যাংকের প্রধান একাউন্ট। এ ছাড়াও আপনি এগুলো আপনার অধীনে আরো অনেকগুলো অ্যাকাউন্ট রয়েছে। যেগুলো আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী তৈরি করতে পারবেন। ওই সকল অ্যাকাউন্ট গুলো হল
  • Interest Free Savings Deposit Account (Savings Account) = Initial Deposit Amount 5000 TK
  • Excel Savings Account (Savings Account) = Initial Deposit Amount 500 TK
  • Special Notice Deposit Account (Fixed Deposit) = Initial Deposit Amount 2000 TK
  • Current Deposit Account (Current Account) = Initial Deposit Amount 1000 TK
  • DBBL School Savers Account (Student Account) = Initial Deposit Amount 500 TK
  • Savings Deposit Account (Savings Account) = Initial Deposit Amount 500 TK
  • Savings Deposit Account Plus (Savings Account) = Initial Deposit Amount 500 TK

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে

আপনি যখন ডাচ বাংলার সেভিংস একাউন্ট খুলতে যাবেন তখন আপনাকে একটি ফরম দেওয়া হবে। আর এই ফর্মের সাথে কিছু ডকুমেন্ট আপনাকে প্রদান করতে হবে। এখন চলুন আমরা জেনে নেই কোন কোন ডকুমেন্টে অ্যাকাউন্ট খোলার সময় প্রয়োজন হবে।
  • জাতীয় পরিচয়পত্রের একটি ফটোকপি।
  • আপনাকে অবশ্যই সাবালোক হতে হবে। অর্থাৎ আপনার বয়স ১৮ বছরের উর্ধ্বে হতে হবে।
  • সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের চার কপি রঙিন ছবি দরকার হবে।
  • আপনার একাউন্টে যে ব্যক্তির নমিনি হবে তার ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি।
  • নমিনির দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি
  • অ্যাকাউন্ট খোলার সময় আপনাকে ন্যূনতম ৫০০ টাকা জমা রাখতে হবে।
  • যদি প্রয়োজন পড়ে তাহলে আপনার বাড়ির ফটোকপি জমা দিতে হবে।
  • ডাচ বাংলা ব্যাংকে একাউন্ট রয়েছে এমন একজন ব্যক্তির সুপারিশ লাগবে।
  • আর যদি আপনি একজন ব্যবসায়ী হয়ে থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনার ট্রেড লাইসেন্স এর প্রয়োজন হবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম 

ডাচ বাংলা ব্যাংকের একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে প্রথমে ডাচ বাংলা ব্যাংকের নিকটস্থ স্থায়ী শাখা অফিসে যেতে হবে। তারপরে সেখানে গিয়ে কর্মকর্তাগণকে জানাবেন আপনি এখানে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে চান। এরপর তারা আপনাকে একটা আবেদনের জন্য ফরম দিবে। আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টের ক্যাটাগরি অনুযায়ী ব্যাংক একাউন্টের ফর্ম পূরণ করে তাদের প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র আর তার সাথে ব্যাংকের প্রাথমিক ডিপোজিটের টাকা জমা দিতে হবে।
এরপর আপনার সকল তথ্যগুলো যদি সঠিক থাকে তাহলে সেই ব্যাংকের কর্মকর্তাগণ আপনার তথ্যগুলো যাচাই বাছাই করার পরে আপনার জন্য একটি ব্যাংকের হিসাব নম্বর তৈরি করবে। ব্যাংকের এসব নম্বর তৈরি করে তার একটি রিসিট আপনার হাতে দিবে। তাহলে বুঝে নেবেন আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংকে একাউন্ট খোলা কমপ্লিট হয়ে গেছে।

ডাচ বাংলা ব্যাংকে একাউন্ট খোলার সময় আপনার কাছ থেকে যে সকল তথ্য চাইতে পারে সেগুলো হল।
  • আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি
  • যেহেতু আপনি আবেদন করছেন সেজন্য আবেদনকারীর সদ্য তোলা রঙিন ছবি
  • ডাচ বাংলা ব্যাংকে একাউন্টে রয়েছে এমন একজন রেফারেন্স দরকার হবে।
  • আপনার একাউন্টের জন্য জেনে নোমানী হবেন তার ভোটার আইডি কার্ডের দুটি ফটোকপি।
  • আপনার একাউন্টের দুই কপি রঙিন ছবি।
আপনি এই সকল তথ্য জমা দিয়ে ফরম জমা দিলে আপনারা ডাচ বাংলা ব্যাংকের একাউন্ট চালু হয়ে যাবে। আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট অনলাইন এর মাধ্যমে খুলে নিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন। এ ব্যাংকের আপনি ইন্টারনেট ব্যাংকিং এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশনের কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম

আমরা যারা স্টুডেন্ট আছি আমাদের সকলের একটি কমন প্রশ্ন থেকে থাকে যে, আমরা ডাচ-বাংলা ব্যাংকে স্টুডেন্ট একাউন্ট কিভাবে খুলবো। আপনিও যদি একজন স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার এই বিষয়টি সম্পর্কে জানা উচিত। তো চলুন বন্ধুগণ আপনি যদি না জেনে থাকেন এখনই জেনে নেওয়া যাক।

বাংলা ব্যাংকের স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে প্রথমে আপনার নিকটস্থ ডাচ বাংলা ব্যাংকের ব্রাঞ্চে যেতে হবে। এরপর সেখানে গিয়ে আপনি তাদেরকে অবগত করবেন যে, আপনি তাদের এই ব্রাঞ্চে একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে চান। তারপরে তারা আপনাকে একটি স্টুডেন্ট একাউন্টে ফর্ম দেবে।

তারপর এই ফর্মটি নিয়ে সেখানে সকল তথ্য সঠিকভাবে প্রদান করে, ফর্মটি পূরণ করে তারপর তাদের চাহিদা মত সকল তথ্য প্রদান করার মাধ্যমে ফর্মটি তাদেরকে জমা দিন। স্টুডেন্ট একাউন্টের জন্য ফরম জমা দেওয়ার পরেই কিছুক্ষণের মধ্যে আপনার জন্য একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি হয়ে যাবে।
আপনি যদি চান তাহলে এই স্টুডেন্ট একাউন্ট এর জন্য একটি ইনস্ট্যান্ট ATM কার্ড নিতে পারবেন। আবার যদি চান আপনি এটিএম কার্ড নয় চেক বই নিবেন তাহলে আপনি পরবর্তীতে চেক বই সংগ্রহ করতে পারবেন এটা ডাচ বাংলা ব্যাংক থেকে। এ ডাচ বাংলা ব্যাংকের স্টুডেন্ট একাউন্ট শুধুমাত্র ছাত্র-ছাত্রীরা খুলতে পারবে। এছাড়া অন্য কেউ এ ডাচ বাংলা ব্যাংকের স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে পারবে না।

স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার সময় আপনার কাছ থেকে কোন কোন কাগজপত্র চাইতে পারে, এই সম্পর্কে আপনারাও অনেকে দ্বিধা দ্বন্দ্বে থাকেন। এখান থেকে আপনি জানতে পারবেন আপনার জন্য স্টুডেন্ট একাউন্টের কোন কোন ডকুমেন্ট জমা দিতে হবে।
  • আপনি যদি একজন নাগরিক হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই জাতীয় পরিচয় পত্র।
  • আর যদি একজন ভোটার নাগরিক না হয়ে থাকেন তাহলে জন্ম নিবন্ধনের ফটোকপি।
  • আপনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আইডি কার্ড
  • সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের দুই কপি রঙিন ছবি।
  • আপনার একাউন্টের যিনি নমিনি হবেন তিনার ভোটার আইডি কার্ড।
  • নমিনির দুই কপি সদ্য তোলা রঙিন ছবি।
স্টুডেন্ট একাউন্টের জন্য আবেদনকৃত ব্যক্তির বয়স যদি ১৮ বছরের কম হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে গার্ডিয়ানের জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি।
  • গার্ডিয়ানের দুই কপি সদ্য তোলা রঙিন ছবি।
  • পূর্বে ডাচ বাংলা ব্যাংকে একাউন্ট রয়েছে এমন একজন ব্যক্তির সুপারিশ।
  • একটি সচল মোবাইল নম্বর।
  • পিএসসি জেএসসি অথবা ssc পরীক্ষার উত্তীর্ণ হওয়ার সার্টিফিকেট।
আপনি যখন ডাচ বাংলা ব্যাংকে স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে যাবেন তখন অবশ্যই উপরে দেওয়া সকল তথ্যগুলো সংগ্রহ করে নিয়ে তারপরে এই অ্যাকাউন্ট খুলতে যাবেন। উক্ত সকল ডকুমেন্টসমূহ সংগ্রহ করে নিয়ে আপনার নিকটস্থ ডাচ-বাংলা ব্যাংকের শাখায় গিয়ে জমা দিলে একটি স্টুডেন্ট একাউন্ট অনেক সহজেই তৈরি করতে পারবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে

ডাচ বাংলা একাউন্ট খোলার জন্য কত টাকা ফি প্রদান করতে হয়। আর আসলেও কোন ফির প্রদান করতে হয় কিনা ডাচ বাংলা ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় সে বিষয়ে আজকের এই টপিক। তো বন্ধুগণ চলুন এখন আমরা জেনে নেই ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে।

ডাচ বাংলা ব্যাংকের একাউন্ট খোলার জন্য কোন টাকার প্রয়োজন হয় না। আপনি শুধু তাদের প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস দিয়ে আপনি কোন ধরনের অ্যাকাউন্ট খুলতে চান সেটি নির্বাচন করলেই ডাচ বাংলা ব্যাংকের কর্মকর্তা গন আপনাকে একটি সঠিক অ্যাকাউন্ট খুলে দিবে।

তবে আপনি যখন প্রাথমিক অবস্থায় ডান্স বাংলা ব্যাংকের একাউন্ট খুলতে যাবেন তখন অবশ্যই আপনাকে ৫০০ টাকার প্রাথমিক ডিপোজিট দিয়ে ব্যাংক একাউন্ট খুলতে হবে। এই প্রাথমিক ডিপোজিট ছাড়া আপনার ব্যাংক একাউন্ট সচল হবে না। সেটা নিষ্ক্রিয় অবস্থায়ই পড়ে থাকবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিংস একাউন্ট চার্জ

আপনি যখন ডাচ বাংলা ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে যাবেন তখন অবশ্যই আপনার জানা উচিত। সে একাউন্টে আপনি যদি নির্দিষ্ট পরিমাণ সেভিং করেন তাহলে কত টাকা চার্জ প্রদান করতে হবে। কারণ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট মেইনটেনেন্স করার জন্য কিছু টাকা চার্জ নেয়। আর আপনি যদি দেখেন বছর শেষে আপনার একাউন্ট থেকে কিছু টাকা কেটে নিয়েছে আপনি যদি না জেনে থাকেন কোন কারণে কেটে নিয়েছে তাহলে আপনি হতভম্ব হয়ে পড়বেন।

আপনাদের সকল সুবিধার জন্য কোন একাউন্ট এর জন্য কেমন ডাচ বাংলা ব্যাংকের চার্জ কাটা হয় সে সম্পর্কে এখন জানাবো।

আপনার একাউন্টে যদি ৯,৯৯৯ টাকা থাকে তাহলে আপনার কোন বাৎসরিক চার্জ প্রদান করতে হবে না। তবে আপনার একাউন্টে যদি ১০ হাজার টাকার উর্ধ্বে থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনাকে চার্জ প্রদান করতে হবে।
  • ১০,০০০ টাকা থেকে ২৫,০০০ টাকার ৬ মাসের চার্জ ১০০ টাকা।
  • ২৫,০০০ - ২,০০,০০০ টাকার ৬ মাসের চার্জ ২০০ টাকা।
  • ২,০০,০০০-১০,০০,০০০ টাকার ৬ মাসের চার্জ ২৫০ টাকা।
  • ১০,০০,০০০ টাকা থেকে আপনি এর উর্ধে যত টাকাই রাখেন না কেন তার জন্য ৩০০ টাকা চার্জ প্রদান করতে হবে।
  • একাউন্ট বন্ধের জন্য চার্জ কাটা হবে ২০০ টাকা।
তবে অবশ্যই আপনাকে অবগত রাখতে হবে এই চার্জের সাথে সরকারি ভ্যাট ১৫% কাটা হবে। আরে ডাচ বাংলা ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের বিভিন্ন ধরনের সহায়তা করে থাকে। শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তির টাকা খুব সহজে ডাচ বাংলা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করা যায়। এছাড়াও যারা মেধা তালিকা প্রথম সারির বৃত্তি অর্জন করেন তাদেরও উপবৃত্তির ব্যবস্থা এখান থেকে করা হয়।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট দেখার নিয়ম

আমরা তো ডাস বাংলা ব্যাংকের একাউন্ট তৈরি করে ফেললাম। ফোনে অ্যাকাউন্ট কিভাবে দেখব সেই সম্পর্কে আমাদের সকলের জানা উচিত। আপনিও যদি একজন নতুন ইউজার হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার এই বিষয় সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা রাখা উচিত। তো চলুন বন্ধুগণ এই সম্পর্কে এবং কোন কোন উপায়ে আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট চেক করতে পারবেন সেই সম্পর্কে এখন জানাবো।
ডাচ-বাংলা ব্যাংকের একাউন্ট বিভিন্ন উপায়ে চেক করা যায়। সেগুলো হলো
  • NexusPay অ্যাপের সাহায্যে।
  • ATM কার্ড ব্যবহার করে।
  • Internet Banking এর মাধ্যমে।
  • SMS এর মাধ্যমে।
  • সরাসরি ব্যাংকে উপস্থিত হয়ে।
NexusPay অ্যাপের সাহায্যেঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের কথা মাথায় রেখে এ সুন্দর অ্যাপ্লিকেশনটি লঞ্চ করে। আর এই অ্যাপ্লিকেশন টির নাম NexusPay অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে আপনার ডাচ বাংলা ব্যাংকের সকল ধরনের যাবতীয় কার্যক্রম অনলাইনেই করতে পারবেন। যার জন্য আপনার সরাসরি ব্যাংকে যাওয়ার কষ্টটুকু কমে যাবে। এ সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা নিম্ন জানাবো।
  • প্রথমে আপনাকে গুগলে প্লে স্টোর থেকে NexusPay এপ্লিকেশনটি ইন্সটল করে নিয়ে তারপর সেটি ওপেন করতে হবে।
  • এরপর সে এপ্লিকেশনে প্রবেশ করার পরে আপনাকে অ্যাকাউন্ট লগইন করতে হবে।
  • অ্যাকাউন্ট লগইন করার সম্পূর্ণ হলে প্রথমে আপনাকে সিলেক্ট করতে হবে Dutch-Bangla Bank NexusPay ATM কার্ড।
  • এরপর আপনি উপরের থ্রি লাইন মেনু দেখতে পাবেন। সেখানে ক্লিক করুন Balance Enquiry অপশনে প্রবেশ করুন।
  • Dutch-Bangla Bank NexusPay ATM কার্ড অটোমেটেড সিলেক্ট হয়ে থাকবে। আর যদি সিলেক্ট করা না থাকে তাহলে আপনাকে সিলেট করে দিতে হবে।
  • এটি সিলেক্ট করার পরে আপনার ডাচ-বাংলা ব্যাংক একাউন্ট এর অ্যাভেলেবেল ব্যালেন্স দেখতে পাবেন। এছাড়া আপনি সেখানে আপনার সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারবেন না।
ATM কার্ড ব্যবহার করেঃ এটিএম কার্ড ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংকের বুথ থেকে সহজে ব্যালেন্স দেখতে পারবেন। সেই সকল কার্যক্রম আপনি কিভাবে বুথে গিয়ে প্রবেশ করে করবেন সেটা সম্পর্কে এখন জানাবো।
  • ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এটিএম কার্ড বুথে প্রবেশ করান।
  • এখন আপনার ব্যাংক একাউন্টের পিন নাম্বার চাইবে। এটিএম কার্ডের পিন নাম্বার দিন।
  • মেনু থেকে ব্যালেন্স স্টেটমেন্ট ক্লিক করুন
  • এখন আপনার একাউন্টের ব্যালেন্স জানার জন্য ব্যালেন্স অনুসন্ধান করুন বাটনে ক্লিক করুন।
  • এরপরে আপনাকে সেই পথ থেকে প্রশ্ন করা হবে, আপনি কি আপনার লেনদেনের রশিদ চান?
  • যদি আপনি এখান থেকে রশিদ নেন তাহলে আপনার কাছ থেকে তিন টাকা চার্জ করা হবে। আর আপনার যদি রশিদ না দরকার হয় তাহলে না বাটনে ক্লিক করুন।
  • এখন আপনি সর্বোচ্চ ১০ সেকেন্ড অপেক্ষা করার পরে ডাচ বাংলা ব্যাংকের একাউন্টের ব্যালেন্স দেখতে পারবেন।
এসএমএস এর মাধ্যমেঃ ডাচ বাংলা ব্যাংকের তাদের সকল গ্রাহকদের কথা চিন্তা করে এই এসএমএস ব্যাংকিং পদ্ধতিটি চালু করেছে। আপনি যদি চান তাহলে ডাচ বাংলা ব্যাংকে এসএমএস পাঠানোর মাধ্যমেই ব্যালেন্স যাচাই করে নিতে পারবেন। কিভাবে এই কাজটি করতে হবে চলুন জেনে নেই।
  • প্রথমে ফোন থেকে মেসেজ অপশানে প্রবেশ করুন।
  • সেখানে গিয়ে টাইপ করুন BAL<space>Account No
  • তারপরে সেই মেসেজ পাঠিয়ে দিন ৩২২৫ নাম্বারে
  • মেসেজ পাঠানোর কিছুক্ষণের মধ্যেই সেখান থেকে একটি ফিরতি মেসেজ পাঠানো হবে। আর সেই মেসেজে আপনার একাউন্ট স্ট্যাটাস জানিয়ে দেওয়া হবে।
মেসেজের উদাঃ BAL 1234567890 ‍Send to 3225 Number

এই তিনটি উপায় এই সকলের কাছে সবথেকে বেশি জনপ্রিয়। তাই এই তিন উপায় সম্পর্কেই দেখানো হলো। আশা করছি আপনি সকল কিছু বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। এই সম্পর্কে আপনার কোন মতামত থাকলে আপনি আমাদেরকে মন্তব্য করার মাধ্যমে জানাতে পারেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট ফরম

আপনি যেকোন ধরণের একাউন্টই আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংকে খুলতে যান না কেনো আপনাকে একটি ফরম নিতে হবে। আপনি চাইলে এই ফর্ম ব্যাংকে ব্রাঞ্চ থেকে সংগ্রহ করে নিতে পারেন। আবার ডাচ বাংলা ব্যাংকে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকেও সংগ্রহ করে নিতে পারেন। আপনাদের সুবিধার্থে নিচেই ফর্মের লিংক দেওয়া হলো।

আপনি প্রথমে ডাচ বাংলা ব্যাংকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন। তার পরে সেখান থেকে Download Form এ ক্লিক করুন। এখান থেকে আপনি ফরম টি পিডিএফ আকারে পেয়ে যাবেন। তারপরে সেটি প্রিন্ট করে নিয়ে ব্যাংকে জমা দিতে পারবেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট সম্পর্কে সাধারণ জিজ্ঞাসা (FAQ)

প্রশ্নঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার কত ডিজিটের?
উত্তরঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার ১২ ডিজিটের হয়।

প্রশ্নঃ ডাচ বাংলা ব্যাংকের মালিকের নাম কি?
উত্তরঃ ডাচ বাংলা ব্যাংকের মালিকের নাম হল বাংলাদেশের এটি এম. সাহাবুদ্দিন আহমদ।

প্রশ্নঃ ডিবিবিএল ব্যাংক কোড?
উত্তরঃ ডিবিবিএল ব্যাংক কোড হলো DBBLBDDH110 BIC / SWIFT

প্রশ্নঃ ডাচ বাংলা ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে সর্বোচ্চ কত টাকা তোলা যায়?
উত্তরঃ প্রতিদিন আপনি ৮০,০০০ টাকা করে ৮ বার তুলতে পারবেন। আর মাসে যতবার খুশি ততবার এই সেবা নিতে পারবেন।

প্রশ্নঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্টে সর্বনিম্ন কত টাকা রাখতে হয়?
উত্তরঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্টে সর্বনিম্ন ৫০০ টাকা রাখতে হয়।

শেষ কথা 

আপনারা আজকের আর্টিকেলটিতে ডাচ-বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম ও ডাচ-বাংলা ব্যাংক একাউন্ট সেভিং চার্জ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছেন। আশা করছি আপনি সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পরে উক্ত এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারলেন। এই রকম তথ্যবহুল আর্টিকেল প্রতিদিন ফ্রীতে পড়তে আমাদের সাথেই থাকুন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url