টক দই এর ১৫টি উপকারিতা ও অপকারিতা জেনে নিন

প্রিয় পাঠক আপনারা অনেকেই  টক দই এর উপকারিতা ও অপকারিতা লিখে গুগলে সার্চ করে থাকেন। কারণ টক দইয়ের অনেক উপকারিতা রয়েছে আপনারা তা অনেকেই জানেন না। তবে চিন্তা কোন কারণ নেই আজকের এই পোস্টটিতে আমরা আপনাদের জন্য টক দইয়ের উপকারিতা ও টক দই এর ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব।
টক দই এর উপকারিতা ও অপকারিতা
আপনারা কি জানেন টক দই আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী। এটি আমাদের শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে এছাড়া আরো অনেক উপকারিতা করে থাকে। তাই আপনি যদি টক দই এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে পোস্টটি মনোযোগ সহকারে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন।

ভূমিকা 

পৃথিবীতে এমন কিছু খাদ্য আছে যা একই সাথে শত শত গুনের আধার। ঠিক তেমনি একটা খাবার হচ্ছে টক দই। এই টক দই আমাদের শরীরের জন্য অনেক উপকারী। নিয়মিত দই খেলে আমাদের ওজন কমতে শুরু করে। কিন্তু মনে রাখবেন সেটা অবশ্যই হতে হবে টক দই। মিষ্টি দই এ অনেক চিনি থাকে যার জন্য আমাদের দেহের ওজন অনেকটাই বেড়ে যায়। অন্যদিকে টক দই রয়েছে আমিষ, ভিটামিন এবং মিনারেল যা আমাদের দেহের ওজন কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

 টক দই এর উপকারিতা ও অপকারিতা

আপনার নিশ্চয়ই টক দইয়ের উপকারিতা সম্পর্কে জানতে এই অংশে এসেছেন। টক দই আমাদের বিভিন্ন ধরনের উপকার করে থাকে। আবার উপকারের সাথে সাথে যদি সঠিকভাবে ব্যবহার না করা হয় তাহলে অপকারও করে থাকে। চলুন আর কথা না বাড়িয়ে এবার আমার জেনে নেই  টক দই এর ১৫ টি উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে।
  • সাধারণত টক দই রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ভিটামিন ডি। যা হাড় ও দাঁতের গঠনে সাহায্য করে। মহিলাদের টক দই বেশি করে খাওয়া প্রয়োজন। কারণ তারাই সাধারণত ক্যালসিয়ামের অভাবে বেশি ভোগেন।
  • টক দই এর ব্যাকটেরিয়া আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এই ব্যাকটেরিয়া টি শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে এবং উপকারী ব্যাকটেরিয়া বাড়িয়ে শরীরে হজম শক্তি বৃদ্ধি করে।
  • টক দই শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। তাছাড়াও ঠান্ডা, সর্দি এবং জ্বরকে আমাদের শরীর থেকে দূরে রাখে।
  • টক দই রয়েছে ল্যাকটিক এসিড, যা মানুষের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে এবং ডায়রিয়া রোগ প্রতিরোধ করে। এই টক দই কোলন ক্যান্সার রোগীদের খাদ্য হিসেবে খুবই উপকারী।
  • সাধারণত আমরা অনেকেই দুধ খেতে পারি না অথবা দুধ হজম করতে পারি না। তারা টক দই খেতে পারেন। কারণ টক দইয়ের  আমিষ দুধের চেয়ে সহজপাচ্চ। যার কারণে এটি খুব দ্রুত হজম হয়ে যায়।
  • সাধারণত দই এর ব্যাকটেরিয়া হজম করতে সাহায্য করে। তাই এটি পাকস্থলীর বদহজমের জ্বালাপোড়া কমাতে সাহায্য করে এবং হজমের সমস্যা কমায়।
  • ওজন কমাতে টকদই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। টক দইয়ের আমিষের জন্য পেট ভরা বোধ হয় এবং শরীরে শক্তি পাওয়া যায়। যার কারনে অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ করতে মন চায় না। আর অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ বন্ধ হলে আমাদের শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।
  • টক দই খেলে শরীরের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। প্রতিদিন মাত্র এক কাপ করে টক দই সেবনে আমাদের শরীরের উচ্চ রক্তচাপ প্রায় এক- তৃতীয়াংশ কমে যায়। এছাড়া এই টক দই রক্তের খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দেয়।
  • নিয়মিত টক দই খেলে হার্টের  অসুখ এবং ডাইবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণে থাকে।
  • সাধারণত টক দই আমাদের শরীরে টক্সিন জমতে দেয় না। যার ফলে অন্ত্রনালী পরিষ্কার থাকে। যা শরীরকে সুস্থ রাখে এবং বার্ধক্য রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।
  • টক দইয়ের পুষ্টি উপাদান গুলো আমাদের শরীরে হজমের সময় তাড়াতাড়ি শরীরে শোষিত হয়ে খুব দ্রুত শরীরকে শক্তি প্রদান করে।
  • সাধারণত টক দই আমাদের ব্রেন কে টাইরোসিন সরবরাহ করে, যেটা আমাদের শরীরকে মানসিক প্রশান্তি দেয় এবং আমাদের শরীরের ক্লান্তি দূর করে।
  • টক দই রক্ত শোধন করে এবং নিয়মিত টক দই সেবনে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।
  • টক দই শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে তাই গরমের সময় টক দই খাওয়া খুবই জরুরী।
  • টক দই শরীরে টক্সিন জমতে দেয় না। যার কারণে শরীরের টক্সিন কমার কারণে ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়।
  • টক দই প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, রিবোফ্লোবিন, ভিটামিন বি সিক্স, বিফাইভ ও ভিটামিন বি টুয়েলভ রয়েছে। এই উপাদান গুলি শরীর সুস্থতার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

টক দই এর অপকারিতা 

আপনারা কি জানেন প্রত্যেক জিনিসের উপকারের পাশাপাশি অপকারিতাও হয়েছে। টক দই যেমন আমাদের উপকার করে থাকে। তবে এটি আবার আমাদের অপকারও করে থাকে যেগুলো আমরা এই অংশে আলোচনা করব। চলুন এবার জেনে নেই  টক দই এর অপকারিতা সম্পর্কে। টক দই ঠান্ডা প্রভাব বাড়াতে পারে তাই সর্দি কাশি বা জ্বর হতে পারে। এছাড়া একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির ৩০০ গ্রামের বেশি টক দই খাওয়া উচিত নয়। 

কারণ দই এ থাকা ল্যাকটিক অ্যাসিড অনেকেরই হজমের সমস্যা হতে পারে। আবার বিশেষ করে অনেকেই যারা টক দইয়ের সাথে চিনে মিশিয়ে খান তাদের ক্ষেত্রে ডায়াবেটিসের সমস্যা থাকলে ডায়াবেটিস বেড়ে যেতে পারে। তাছাড়াও যাতে ঠান্ডাতে সমস্যা হয় তাদের ক্ষেত্রে ফ্রিজের দই খাওয়া উচিত নয়। কারণ তাদের ফ্রিজে ঠান্ডা টক দই খেলে সমস্যা বৃদ্ধি পাবে। আর অবশ্যই নিয়ম অনুযায়ী পরিমাণ মতো টক দই খাওয়া উচিত। সবকিছুই খাওয়ার নিয়ম রয়েছে এবং পরিমাণ মাত্রায় খাওয়া উচিত।

ওজন কমাতে টক দই এর উপকারিতা

আমরা সবাই জানি দুই একটি হাই প্রোটিনযুক্ত খাবার। আর এই প্রোটিন টা আমরা খুব সহজেই হজম করে নিতে পারি। এছাড়া দুইয়ের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম রয়েছে আরো রয়েছে ভিটামিন ডি। আর ভিটামিন ডি এবং ক্যালসিয়াম আমাদের ওজন কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এছাড়া তোদের মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি,মিনারেল এবং প্রচুর পরিমাণে উপকারী ব্যাকটেরিয়া। এই উপকারী ব্যাকটেরিয়া গুলো আমাদের শরীরে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া নিধন করে। এবং আমাদের শরীরকে রোগ মুক্ত করে।

আপনি সকালে খালি পেটে টক দই খেতে পারেন অথবা দুপুরে খাবার পর কিছু পরিমাণ টক দই খেয়ে নিলেন। তাহলে এই টক দইটি আপনার ওজন কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। টক দইয়ের মধ্যে থাকা উপকারী জীবাণুগুলো আমাদের দেহের খারাপ জীবাণুদের ধ্বংস করে দেয়। তাতে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। নিয়মিত টক দই সেবনে আপনার ওজন অনেকটাই কমতে শুরু করে। তাই ওজন কমাতে টক দইয়ের উপকারিতা অনেক।

টক দই খেলে কি ওজন বাড়ে

টক দই খেলে আমাদের শরীরের কোন ওজন বাড়ে না। কারণ টক দই থাকে থাকে আমাদের শরীরের জন্য উপকারী জীবাণু। যেই জীবাণুগুলা আমাদের শরীরের ক্ষতিকর জীবাণুকে ধ্বংস করে দেয় এবং আমাদের হজম শক্তি বৃদ্ধি করে। টক দই আছে ভিটামিন মিনারেল ইত্যাদি পুষ্টিগুণ। যেগুলো আমাদের শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে।

কিন্তু আপনি যদি মিষ্টি দই খান তাহলে আপনার ওজন বৃদ্ধি পাবে। কারণ মিষ্টি দই থাকে প্রচুর পরিমাণে চিনি। এটি আপনার ওজন বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। তাই পরিশেষে বলা যায় টক দই খেলে খেলে আমাদের শরীরের ওজন বৃদ্ধি পায় না।

খালি পেটে টক দই খাওয়ার উপকারিতা

সাধারণত খাবার হজম করতে সাহায্য করে টক দই। তাই আমার মতে খালি পেটে দই খাওয়াটা উচিত নয়। এতে করে আপনার উল্টো এসিডিটি হতে পারে। তাই আপনি সকালে খালি পেটে দই না খেয়ে দুপুরে খাবার পর এক বাটি দই খেতে পারেন। দুপুরে খাবারের পর টক দই খেলে আমাদের শরীরের হজম ভালো হয় এবং পেট পরিষ্কার থাকে।

টক দইয়ে যেই উপকারী ব্যাকটেরিয়া থাকে সেই ব্যাকটেরিয়া আমাদের শরীরের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া দের ধ্বংস করে দেয়। আর আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে দেয়। আমাদের শরীরের জন্য টক দই খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি খাবার। তাই পরিশেষে বলা যায় যে আপনি কখনোই খালি পেটে দই খাবেন না।কারণ দই খাবার হজম করতে সাহায্য করে।

চুলে টক এর উপকারিতা

চুল নিয়ে আমাদের নানান সমস্যা। যেমন চুল ঝরে যাওয়া, চুল রুক্ষ ও শুষ্ক হওয়া, খুশকি এবং চুল সিল্কি না হওয়া কিছু না কিছু সমস্যা আছেই। আর এই সমস্যাগুলো সমাধানে টক দই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বিশেষ করে চুলের যাবতীয় সমস্যা সমাধানে টক দই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। পুষ্টিগুণে ভরপুর এই টক দোয়ে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি, প্রোটিন, ভিটামিন বি ফাইভ, ফ্যাট এবং ল্যাকটিক অ্যাসিড থাকায় চুলের প্রয়োজনে পুষ্টি যোগায়।

চুল পড়া রোধ করে, খুশকি দূর করে এবং চুলকে ঘন সিল্কি করে তোলে এই টক দই। পড়া বন্ধ করতেএবং চুলের গোড়া শক্ত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে এই টক দই। তাই চুলের যত্নে অবশ্যই টক দই ব্যবহার করুন।

প্রতিদিন দই খেলে কি হয়

খাবারের মধ্যে টক দই খুবই পরিচিত একটা নাম। প্রতিদিন টক দই খেলে যাদের হজম ক্ষমতা কম তাদের হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এবং প্রতিদিন টক দই খেলে আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। টক দই রয়েছে উপকারি জীবাণু। যেই জীবাণুগুলা আমাদের শরীরের ক্ষতিকর জীবাণুদের ধ্বংস করে এবং আমাদের শরীরকে সুস্থ রাখে। প্রতিদিন দই সেবনে বিভিন্ন রোগের সমাধান পাওয়া যায়। যেমন, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং ডায়রিয়া।

প্রতিদিন টক দই খেলে আমাদের শরীরের হাড় ও দাঁতের গঠন বৃদ্ধি পায়। কারণ এই টক দইয়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন। যা আমাদের হাড় ও দাঁতের গঠনে খুবই উপকারী। টক দই শরীরে টক্সিন জমাতে বাধা দেয়। যার কারণে আমাদের ওজনটা নিয়ন্ত্রণে থাকে। তাই আমি আপনাদের উদ্দেশ্যে বলবো যে প্রতিদিন দুপুরে খাবার পর অন্তত এক কাপ করে টক দই খাবেন।

মুখে টক দই এর উপকারিতা

আপনার অনেকেই আমাদের কাছে জানতে চেয়েছেন মুখে টক দই এর উপকারিতা কি। তবে আমরা এই অংশে মুখে টক দই এর উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।
  • মুখে টক দই ব্যবহার করলে এটি প্রাকৃতিক ত্বকের ময়শ্চারাইজার হিসেবে ভালো কাজ করে।
  • এছাড়া এটি ব্যবহার করলে মুখের আদ্রতা বজায় থাকে এবং আদ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে।
  • বিশেষ করে বয়স্ক মানুষদের ক্ষেত্রে টক দই মুখে ব্যবহার করলে ত্বকের টান টান বজায় থাকে।
  • এছাড়াও মুখের বয়সের ছাপ দূর করতে টক দই ব্যবহার করতে পারেন।
  • রোদে পুড়ে গেলে অর্থাৎ আপনারা টক দই ব্যবহার করলে রোদে পুড়ে যাওয়া হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
  • ত্বকের কালো দাগ ও মুখের কালো দাগ দূর করতে টক দই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
  • এছাড়াও টক দই এ থাকা বিভিন্ন ভিটামিন আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করে থাকে।
  • ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর করতে টক দই ব্যবহার করতে পারেন।
  • এছাড়াও টক দইয়ে রয়েছে জিংক যা আপনার বয়স অর্থাৎ যৌবন ধরে রাখতে সহায়তা করবে।
আশা করছি আপনারা টক দই ব্যবহার করলে কি কি মুখে উপকার পাবেন তা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

টক দই কখন খাওয়া উচিত

টক দই খাওয়ার নির্দিষ্ট কোন সময় নেই। আপনি যেকোনো সময় খেতে পারেন। তবে অবশ্যই নির্দিষ্ট পরিমাণ খাওয়া উচিত। এছাড়াও আপনি টক দই প্রতিদিন দুপুরের খাবারের সাথে অথবা রাতের খাবারের সাথে খেতে পারেন। তবে জানা গেছে রাতে না খাওয়াই ভালো। তবে প্রতিদিন না খাওয়াই ভালো। একদিন পরপর খাবেন। আর মনে রাখবেন সঠিক পরিমাণ সঠিক মাত্রায় টক দই খাবেন। তাহলে আশা করছি বুঝতে পেরেছেন টক দই কখন খাওয়া উচিত।

টক দই খাওয়ার নিয়ম

টক দই খাওয়ার বিশেষ কোন নিয়ম নেই। তবে আপনি এটি দুপুরে খাবারের সাথে খেতে পারেন। আপনার অনেকেই টক দই খাওয়ার নিয়ম বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত থাকেন। এ বিষয়টি তেমন গুরুত্ব দেওয়ার দরকার নেই। কারণ আপনারা তো জানেন টক দিয়ে কখন খেতে হবে এবং কিভাবে খাওয়া উচিত। আর মনে রাখবেন রাতে কখনো টক দই খাবেন না। 

আর অবশ্যই টক দই এর সাথে কখনো চিনি মিশিয়ে খাবেন না। তাহলে আপনি লবণ অথবা গুড় মিশিয়ে খেতে পারেন। আর একটা কথা প্রতিদিন টক দই খাওয়ার দরকার নেই। প্রতিদিন খেলে এতে করে অনেকে ডায়রিয়া হতে পারে আবার বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই নিয়ম মত একদিন পরপর খেতে পারেন।

শেষ কথা

মনে রাখবেন টক দই পেটকে শক্তিশালী করে এবং শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। কিন্তু মিষ্টি দই আমাদের শরীরে গ্যাস তৈরি করে। যার ফলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন রোগ দেখা দেয়। সেই জন্য আপনারা মিষ্টি দই কে এড়িয়ে চলবেন। আর আমার টক দই এর উপকারিতা সম্পর্কিত আর্টিকেল যদি আপনাদের ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই আপনাদের ফ্রেন্ডের সাথে শেয়ার এবং একটি কমেন্ট করবেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url