মিল্ক শেক এর উপকারিতা ও মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে জানুন

আমরা অনেকেই মিল্ক শেক এর নাম শুনেছি। তবে অনেকেই জানে না মিল্ক শেক এর উপকারিতা কি। তাদের জন্যই আজকের পোস্টটি হতে যাচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আজকের পোস্টটিতে আমরা মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে ও মিল্ক শেক এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব। তাই আপনি যদি মিল্ক শেক এর উপকারিতা সম্পর্কে জানতে চান তাহলে পোস্টটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ুন।
মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে ও মিল্ক শেক এর উপকারিতা
আপনারা নিশ্চয়ই মিল্ক শেক এর উপকারিতা ও মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে এ সম্পর্কে জানতেই আজকের পোস্টটিতে এসেছেন। তাই আপনি যদি মিল্ক শেক সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য জানতে চান তাহলে পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। পোস্টসূচিপত্রঃ

উপস্থাপনা

প্রিয় বন্ধুরা আপনারা কি ওজন বাড়াতে চান অথবা ওজন নিয়ে চিন্তিত। আপনারা যদি চিকন থেকে মোটা হতে চান তাহলে মিল্কশেক খেতে পারেন। এতে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের প্রোটিন ও ভিটামিন যা আপনার ওজনকে বাড়াতে সাহায্য করবে এবং আপনি সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে পারবেন। তাছাড়াও রোগা শরীর থেকে ভালো সুস্বাস্থ্য মোটা শরীর বানানোর জন্য ব্যায়ামের পাশাপাশি মিল্ক শেক খেলে ভালো স্বাস্থ্য হয় এবং শরীরের ওজন বাড়ানো যায়। 

আর এজন্য আপনারা আমাদের কাছে জানতে চেয়েছেন মিল্ক শেক এর উপকারিতা কি ও মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে এ সম্পর্কে জানতে চান। তাই আমাদের জন্য আমরা আজকের পোস্টটিতে উক্ত বিষয়গুলো বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব। তাই শেষ পর্যন্ত মিল্কশেক সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য জানতে আমাদের সাথে থাকুন।

মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে

আপনারা বেশিরভাগ এই প্রশ্নটি করে থাকেন যে মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে। আজ আমরা এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা এই অংশ করার চেষ্টা করব। প্রিয় বন্ধুরা আপনারা কি ওজন বাড়াতে চান তাহলে অবশ্যই মিল্কশেক খেয়ে ওজন বাড়াতে পারবেন। ওজন বাড়ানোর ক্ষেত্রে মিল্ক শেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই আপনি যদি রোগা চিকন শরীর থেকে মোটা এবং ওজন বাড়াতে চান তাহলে অবশ্যই মিল্ক সেক খেতে পারেন। 
মিল্ক শেক এ রয়েছে উচ্চ ক্যালরি উপাদান তাছাড়াও এতে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন সহ পুষ্টিকর উপাদান যা আপনার ওজন বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এটি যেমন খেতে সুস্বাদু তেমনি এটি ওজন বাড়াতেও কার্যকারী। সাধারণত মিল্ক শেক এ রয়েছে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টিকর উপাদান যেমন ভিটামিন বি৬ , অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সহ বিভিন্ন ধরনের ক্যালরিযুক্ত উপাদান রয়েছে তাছাড়া রয়েছে চিনি যা আপনার ওজন বাড়াতে সাহায্য করবে। 

এসব মিল্ক শেক সাধারণত বাদাম , দুধ , বিভিন্ন ধরনের ফল, মিষ্টি কুমড়া ও খেজুর সহ বিভিন্ন ধরনের উপাদান একত্রে করে তৈরি করা হয়ে থাকে। যেটি পায় ৬০টি উপাদান নিয়ে তৈরি করা হয়। যার ফলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টিকর ঘাটতি পূরণ করে এবং আপনি অতি সহজেই মিল্ক শেক খেয়ে ওজন বাড়াতে পারেন। তাই আপনার ওজন বাড়াতে চাইলে খাদ্য চাট এ মিল্কশেক অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। যেটি আপনার ওজন বাড়ানোর সাথে সাথে আপনার পেশি শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে।

মিল্ক শেক এর উপকারিতা ও অপকারিতা

প্রিয় পাঠক আপনারা নিশ্চয়ই এতক্ষন অপেক্ষা করার পর মিল্ক শেক এর উপকারিতা সম্পর্কে জানতে এই অংশটিতে এসেছেন। এখন আমরা এই অংশটিতে বিস্তারিত মিল্ক শেক এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করার চেষ্টা করব। কারণ আপনাদের মধ্যে অনেকেই আছে তারা এই বিষয়টি সম্পর্কে ভালোমতো জানে না। চলুন আর কথা না বাড়িয়ে এবার শুরু করা যায় মিল্ক শেক এর উপকারিতা কি কি।
  • মিল্ক শেক এ রয়েছে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টিকর উপাদান যা আপনার শরীরের পুষ্টিকর ঘাটতি পূরণ করতে সহায়তা করে থাকবে। আর এই মিল্কশেক একটি উপাদানের ভরপুর বলা হয়ে থাকে।
  • তাছাড়াও মিল্কশেকে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে থাকে।
  • আপনার শরীরে যদি কার্বোহাইড্রেট এর ঘাটতি হয়ে থাকে তাহলে আপনি মিল্কশেক গ্রহণ করার মাধ্যমে শরীরের কার্বোহাইড্রেট এর ঘাটতি পূরণ করতে পারবেন।
  • এতে রয়েছে ভিটামিন সহ বিভিন্ন ধরনের পুষ্টিকর উপাদান যা আপনার ওজনকে বানাতে সহায়তা করতে পারে।
  • তাছাড়া ও জানা গেছে এটি খেলে আপনার হাটকে সুস্থ রাখতে সহায়তা করতে পারে।
  • এছাড়াও আপনার মস্তিষ্ক ফ্রেশ রাখতে সহায়তা করে থাকে এই মিল্কশেক খাওয়ার ফলে।
  • মিল্ক শেকে বিভিন্ন ধরনের প্রোটিন ও ভিটামিন যা আপনার পেশী গঠন করতে সহায়তা করতে পারে এবং শরীরের স্বাস্থ্য ও শরীরের হাড় মজবুত করতে পারে।
  • তাছাড়া সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপকার হলো এটি আপনার স্বাস্থ্য ঠিক রাখার পাশাপাশি আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বহু গুনে বাড়িয়ে দিবে।
  • তা ছাড়া জানা গেছে এই মিল্কশেকে রয়েছে ভিটামিন ডি , ভিটামিন বি সহ বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন যা আপনার ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ করতে পারে।
  • তাছাড়াও এই মিল্ক সেক গুলো দুধসহ বিভিন্ন ধরনের পুষ্টিকর খাদ্যের উপাদান দ্বারা তৈরি যার ফলে এতে রয়েছে দুধের ক্যালসিয়াম সহ প্রোটিন যা আপনার দাঁতকে মজবুত , হাড়কে শক্তিশালী করতে সহায়তা করে থাকে।
  • এই মিল্কশেক বাড়ন্ত ছেলেদের অথবা মেয়েদের খাওয়ালে তাদের শরীরে হাড় বৃদ্ধি পাবে এবং শরীরের হাড় গঠনে সহায়তা করে থাকে। তাছাড়াও শরীরের হাড় সুস্থ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই বাড়ন্ত বয়সে ছেলে মেয়ে উভয় এগুলো খাওয়াতে পারেন।
  • তাছাড়া এটিতে রয়েছে এক প্রকার এন্টিঅক্সিডেন্ট যেটি আপনার মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখতে সহায়তা করবে।
আশা করছি আপনারা এতক্ষণে মিল্ক সেক এর উপকারিতা গুলো জানতে পেরেছেন। চলুন আমরা এখন মিল্ক শেক এর অপকারিতা জেনে আসি।

মিল্ক শেক এর অপকারিতা

আপনারা অনেকে জানেন মিল্কশেক উপকারিতার পাশাপাশি সাধারণত কিছু অপকারিতা করে থাকে যেগুলো আমরা এখন জানব।
  • যাদের ত্বকে এলার্জির সমস্যা রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে এলার্জি বেড়ে যেতে পারে। তবে এটি সাধারণত কিছু কিছু ব্যক্তির ক্ষেত্রে হয়ে থাকে। এলার্জি হল শারীরিক সমস্যা। এটি যে কারোর যেকোন খাবারে হতে পারে। তবে আপনার যদি মিল্ক সেকে অ্যালার্জি থাকে তাহলে খাওয়া থেকে বিরত থাকতে পারেন।
  • তাছাড়া যারা শুধুমাত্র প্রোটিন ও পুষ্টিকর উপাদানের জন্য মিল্কশেক খাচ্ছেন তাদের অবশ্যই মনে রাখা উচিত এটি খাওয়ার ফলে আপনার ওজন বেড়ে যেতে পারে।
  • এছাড়া অনেকের এই মিল্কশেক খাওয়ার ফলে হজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। আপনার হজমে সমস্যা রয়েছে কিনা সেটি পরীক্ষা করতে মিল্ক সেক খেয়ে দেখুন।
  • তাছাড়াও মিল্ক শেকে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টি উপাদান সহ চিনিযুক্ত উপাদান রয়েছে যার ফলে এটি খাওয়া হলে ডায়াবেটিস রোগীদের ডায়াবেটিস মাত্রা বেড়ে যেতে পারে।
  • এছাড়াও এই মিল্ক শেক অধিক ফ্যাট যুক্ত স্যাচুরেটেড উপাদান নিয়ে তৈরি যার ফলে এটি অধিক পরিমাণে খেলে আপনার শরীরে ফ্যাট জমা হতে পারে।
  • তাছাড়াও আপনি যদি অধিক পরিমাণে বানানো মিল্ক শেক খেয়ে ফেলেন তাহলে আপনার বদহজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে তাছাড়াও পেটে ব্যথা হতে পারে এবং পেটে গ্যাসের সমস্যা দেখা দিতে পারে।
  • এটি অধিক পরিমাণে গ্রহণ করার ফলে আপনার শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। তবে পরিমাণ মতো খেলে তেমন কোন ক্ষতি নেই বললেই চলে শুধু আপনি উপকারী পাবেন।
আশা করি আপনারা মিল্ক শেক এর অপকারিতা গুলো জানতে পারলে।

মিল্ক শেক খাওয়ার নিয়ম - মিল্ক শেক কিভাবে খেতে হয়

আপনারা মিল্ক শেক খাওয়ার পাশাপাশি অবশ্যই মিল্ক শেক খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে হবে। যার ফলে আপনারা সঠিক নিয়মে মিল্কশেক খেতে পারবেন। আজ আমরা এই পাঠে মিল্ক শেক কিভাবে খেতে হয় সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য আলোচনা করব। যদি আপনি সঠিক পরিমাণে খান তাহলে এর থেকে কোন ক্ষতি হবে না বরং আপনার বেশি বেশি উপকার হবে। তার জন্য অবশ্যই খাওয়ার নিয়ম জানা প্রয়োজন।

তবে বলতে গেলে মিল্কশেক খাওয়ার তেমন স্পেশাল নিয়ম নেই। তবে সবচেয়ে ভালো হয় আপনি এক গ্লাস হালকা গরম দুধের সাথে এক থেকে দুই চামচ মিল্কশেক মিশিয়ে খাওয়া উচিত। এটি আপনারা ঘুমানোর আগে খেতে পারেন অথবা বিকালে যদি আপনার ব্যায়াম করার অভ্যাস থাকে , তাহলে আপনি ব্যায়াম করার ৩০ মিনিট আগে মিল্ক শেক খেয়ে ব্যায়াম করা শুরু করতে পারেন। তাহলে এর থেকে সবচেয়ে বেশি উপকার পাবেন।

এছাড়া আপনারা যদি খেজুরের মিল্কশেক খেতে চান তাহলে তার জন্য প্রথমেই হালকা কুসুম গরম দুধের সাথে তিনটি খেজুর ভালোভাবে মিশিয়ে নিবেন ,তারপর চিনি যুক্ত করবেন আর একটি আই কিউব নিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে হয়ে যাবে আপনার খেজুরের মিল্ক শেক। এভাবে আপনারা খেজুরের মিল্কশেক বানিয়ে খেতে পারেন। আর অবশ্যই অধিক পরিমাণে খাবেন না প্রতিদিন একগ্লাস করে খেতে পারেন।

ওয়েট গেইন মিল্ক শেক এর উপকারিতা

আপনার অনেকেই আমাদের কাছে প্রশ্ন করে থাকেন ওয়েট গেইন মিল্ক শেক এর উপকারিতা কি। এখন আমরা এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। চলুন আর কথা না বাড়িয়ে এবার শুরু করা যাক ওয়েট গেইন মিল্ক শেক এর উপকারিতা গুলোঃ
  • এ ধরনের মিল্ক শেক সাধারণত উচ্চ ক্যালসিয়াম ও প্রোটিন যুক্ত হয়ে থাকে যা আপনার শরীরের ক্যালসিয়ামের ঘাটতি সহ ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ করে থাকে।
  • তাছাড়া এই ওয়েট গেইন মিল্ক শেক এ রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন সহ ওজন বৃদ্ধির পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে যার ফলে আপনারা দ্রুত ওজন বৃদ্ধিতে এ ধরনের মিল্ক শেক খেতে পারেন।
  • আপনারা যদি দ্রুত ওজন বৃদ্ধি করতে চান তাহলে এই ওয়েট গেইন মিল্ক শেক খুবই কার্যকরী।
  • তাছাড়াও এ ধরনের মিল্ক সেকে রয়েছে খনিজ লবণ সহ , প্রোটিন , কার্বোহাইড্রেট ও চর্বি উপাদান যা আপনার শরীরে ক্যালরি চাহিদা পূরণ করবে।
  • এছাড়াও আপনার মাসেল অর্থাৎ বডি মাসেল বৃদ্ধি করতে চান তাহলে এটি খেতে পারেন। তার আগে অবশ্যই বলে রাখা উচিত এর জন্য আপনাকে অবশ্যই জিমে গিয়ে ব্যায়াম করতে হবে এবং সাথে উক্ত মিল্ক সেক খেতে হবে।
  • তাছাড়াও ওয়েট গেইন মিল্ক শেক মাংসপেশী বৃদ্ধিতে সহায়তা করে থাকে এবং হাড় মজবুত করতে সাহায্য করে থাকে।
তাহলে আশা করছি আপনারা এতক্ষণে ওয়েট গেইন মিল্ক শেক এর উপকারিতা গুলো জেনে গেলেন ভালোভাবেই।

মিল্ক শেক খেলে কি ক্ষতি হয় - মিল্ক শেক এর সাইড ইফেক্ট - মিল্ক শেক এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

মিল্ক শেক তেমন ক্ষতি নেই। আপনার অনেকেই আমাদের কাছে জানতে চান মিল্ক শেক খেলে কি ক্ষতি হয়। এ সম্পর্কে আমরা বলব মিল্কশেক খেলে তেমন কোন ক্ষতি লক্ষ্য করা যায়নি তবে আপনি যদি এটি নিয়মের বাইরে অধিক পরিমাণে খেয়ে থাকেন তাহলে সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে। বিশেষ করে আপনার ওজন অত্যাধিক পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে। তাছাড়াও আপনার দেহে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যাওয়া সম্ভাবনা রয়েছে। 

তবে অনেকেরই আবার মিল্কশেকে নাকি এলার্জি হয় তবে এটি ক্ষেত্র বিশেষে হয়ে থাকে, সাধারণত সবার হয় না। আবার যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। তাই মিল্ক শেক খাওয়া থেকে তারা বিরত থাকুন। তাছাড়া আর কোনো ক্ষতি তেমন নেই। সঠিক নিয়মে সঠিক মাথায় খেলে উপকারিতাই বেশি পাওয়া যায় যা আমরা উপরের অংশে জেনে এসেছি।

মিল্ক শেক বানানোর নিয়ম

আপনি কি মিল্ক শেক বানানোর নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান। চলুন আমরা এখন মিল্ক শেক বানানোর নিয়ম জেনে আসি। আপনি যদি খেজুরের মিল্ক শেক বানাতে চান তাহলে কিছু নিয়ম ও উপায় মেনে চলতে হবে চলুন তা জেনে নেই।

খেজুরের মিল্কশেক বানানোর নিয়মঃ প্রথমে আপনাকে চারটি খেজুর নিতে হবে সেগুলো ব্লেন্ডারে ভালোভাবে মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করতে হবে। তারপর ব্লেন্ডারে আপনার প্রয়োজনমতো চিনি নিন। হাফ কেজির মত দুধ নিবেন এবং হালকা বরফ মিশিয়ে মিশনটি তৈরি করে নিন ভালোভাবে তাহলে আপনার তৈরি হয়ে যাবে খেজুরের মিল্ক শেক।

চকোলেট মিল্ক শেক বানানোর নিয়মঃ আপনি ঘরে বসেই চকলেট মিল্কশেক বানাতে পারবেন। এ ধরনের মিল্কশেক বাচ্চারা বেশি পছন্দ করে থাকে। এর জন্য প্রথমেই আপনাকে দুই থেকে তিন কাপ দুধ নিতে হবে। তারপর ২-৩ চামচ ভ্যানিলা ক্রিম অথবা ফ্লেভার ব্যবহার করুন। এবার একটি কলা নিতে পারেন তার সাথে ২-৩ চা চামচ তরল চকলেট ও ক্যারামেল আইসক্রিমের ক্রিম মিশিয়ে ব্লেন্ডারে তৈরি করুন। তাহলে হয়ে যাবে আপনার চকলেট মিল্কশেক।

অরিজিনাল মিল্ক শেক

আপনাদের অবশ্যই মিল্কশেক থেকে ভালো উপকার পেতে অরজিনাল অর্থাৎ আসল মিল্কশেক কিনতে হবে। আপনার অবশ্যই কিনার আগে যাচাই-বাছাই করে কিনবেন। বর্তমানে অনেক অসাধু ব্যবসায়ীরা অনলাইনে নকল মিল্ক শেক কম দামে বিক্রি করে থাকে। যেগুলো কেনা থেকে বিরত থাকবেন। আপনারা বাজারে গিয়ে সুপার সপ থেকে এগুলো কিনতে পারেন। তাছাড়া বিভিন্ন ব্যান্ডের মিল্কশেকগুলো পাওয়া যায় সেগুলো কিনতে পারেন। মূল কথাই আপনারা ভালোভাবে দেখে মিল্কশেকগুলো কিনবেন যাতে আপনারা সঠিক পুষ্টি এবং উপকার পান।

মিল্ক শেক এর দাম কত বাংলাদেশে

মিল্কশেক খাওয়ার পূর্বে আপনাদের অবশ্যই মিল্ক শেক এর দাম কত বাংলাদেশে এ সম্পর্কে জানা উচিত। তাহলে আপনাদের ধারণা থাকলে আপনারা সেই বুঝে কিনে মিল্ক শেক সেগুলো খেতে পারবেন। চলুন আমরা এখন মিল্কশেক এর দাম জেনে আসি। নিম্নে কয়েকটি প্রচলিত ও জনপ্রিয় মিল্কশেক এর দাম দেওয়া হল।
  • Milky Way Chocolate Milk Shake Drink - চকোলেট মিল্ক শেক ৩৫০ মিলি গ্রাম এর দাম ৮০০ টাকা
  • Savoury Milkshake Premix Vanilla - মিল্ক শেক ভ্যানিলা ১০০ গ্রাম এর দাম ১৮০ টাকা
  • Maltese R’s Chocolate Milk Shake Drink - চকোলেট মিল্ক শেক ৩৫০ মিলি গ্রাম এর দাম ৭০০ টাকা
আশা করছি আপনারা মিল্কশেক এর দাম জানতে পেরেছেন।

ওয়েট গেইন মিল্ক শেক খাওয়ার নিয়ম

আপনার অনেকেই মিল্কশেক খাওয়ার আগে ওয়েট গেইন মিল্ক শেক খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জানতে চান। তাদেরকে বলে রাখি এটি খাওয়ার তেমন নিয়ম নেই। তবে আপনি যদি দ্রুত ওজন বাড়ানোর জন্য এটি খাতে খেতে চান তাহলে প্রতিদিন নিয়মিত একগ্লাস করে খাবার খাওয়ার পরে খেতে পারেন। এটি আপনি রাতে অথবা বিকালের দিকে খেতে পারেন।
বিশেষ করে আপনার যদি ব্যায়াম করার অভ্যাস থাকে ব্যায়াম করার ৩০ মিনিট আগে খেতে পারেন তাহলে সবচেয়ে ভালো হয়। আরো অনেকেরই রাতে আবার বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে তারা এক্ষেত্রে রাতে না খাওয়ার চেষ্টা করবেন। তাহলে সকালে অথবা বিকালে খাওয়া যেতে পারে।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক আশা করছি আপনারা এতক্ষণে মিল্ক শেক এর উপকারিতা ও মিল্ক শেক খেলে কি ওজন বাড়ে এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য ভালোভাবেই জেনে গেছেন। তাছাড়া মিল্কশেক খাওয়ার নিয়ম গুলো জানলেন যার ফলে আপনারা এখন অতি সহজেই মিল্কশেক বানিয়ে খেতে পারবেন এবং এর থেকেও অধিক পুষ্টি উপাদান গ্রহণ করে বিভিন্ন ধরনের উপকার পাবেন যা আমরা উপরে আলোচনা করেছি। আজকের পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই শেয়ার করুন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url