শিশু বা বাচ্চাদের হাত পা কাপে কেন বিস্তারিত জেনে রাখুন

আমার অনেক সময় দেখে থাকি বাচ্চাদের হাত পা কাঁপতে থাকে। তবে অনেকেই জানেনা বাচ্চাদের হাত পা কাঁপে কেন। তাদের জন্যই আমরা আজকের পোস্টটিতে বাচ্চাদের হাত পা কাপে কেন এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব। তাই আপনারা যদি শিশুদের হাত-পা কাঁপে কেন এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে অবশ্যই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।
বাচ্চাদের হাত পা কাপে কেন
পৌষসূচিপত্রঃবাচ্চাদের সাধারণত বিভিন্ন কারণে হাত পা কেঁপে থাকে। তবে এই কারণগুলো আপনারা যদি না জেনে থাকেন তাহলে এই পোস্টটির মাধ্যমে বাচ্চাদের হাত পা কাপার কারণ সম্পর্কে জানতে পারবেন।

ভূমিকা

বর্তমান সময়ে বাচ্চাদের হাত পা কাপা সমস্যাটি বেড়েই চলেছে। তবে বাচ্চাদের হাত পা কেন কেঁপে থাকে এ সম্পর্কে জানতে পারলে আপনারা সঠিক পদ্ধতি গ্রহনের মাধ্যমে বাচ্চাদের হাত-পা কাঁপা কমাতে পারবেন। আর এজন্য আপনাদের জানতে হবে শিশুদের হাত পা কাঁপে কেন , আর এ সম্পর্কে আমরা আজকের পোস্টটিতে গুরুত্ব সহকারে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি। যাতে আপনারা শিশুদের হাত-পা কাঁপা কমানোর লক্ষণ গুলো জেনে শিশুর হাত পা কাঁপা কমাতে পারবেন। তাই চলুন দেরি না করে এবার আমরা শিশুদের হাত-পা কাঁপে কেন এ সম্পর্কে জেনে নেই।

বাচ্চাদের হাত পা কাপে কেন । শিশুদের হাত-পা কাঁপে কেন

শিশু বা বাচ্চাদের হাত-পা কাঁপে কেন এ সম্পর্কে জানার মাধ্যমেই আপনারা হাত পা কাঁপা নিরাময় করার সঠিক উপায় অবলম্বন করতে পারবেন। সাধারণত শিশুর হাত-পা বিভিন্ন কারণে কেঁপে থাকে। তবে এতে সাধারণত বেশি চিন্তিত হওয়ার কোন কারণ নেই। কারণ আজকের এই অংশে আমরা কেন বাচ্চাদের হাত পা কাঁপে সে সম্পর্কে জানানোর চেষ্টা করব। তবে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে এবার জেনে নেই শিশুদের হাত পা কাপার কারণ গুলোঃ
  • কোন কারনে যদি শিশু ভয় পেয়ে থাকে তাহলে তাদের হাত পা কাপতে শুরু করে। আপনারা লক্ষ্য করবেন বাচ্চা যখন কোন কিছুতে ভয় পাবে তখন তাদের হাত পা কেঁপে থাকে।
  • শিশু জন্মের আগে তার মা মানসিক চাপে থাকলে শিশুর ওপর তার প্রভাব পড়ে অর্থাৎ গর্ভকালীন সময়ে মায়েদের ওপর কোন কারণে মানসিক চাপ হয়ে থাকলে তার প্রভাব শিশুর উপর পড়ে থাকে। এতে করে বাচ্চার দুর্বল স্নায়ুতে প্রভাব পড়ে এবং বাচ্চা জন্মের পর প্রায় হাত-পা কাঁপা লক্ষণ দেখা যায়।
  • বাচ্চারা যখন ভয় পায় এবং কোন কিছুতে ভীত হয়ে যায় তখন দেখবেন বারবার কাঁদতে থাকে এবং তাদের হাত পা কাপা শুরু করে।
  • এছাড়াও বাচ্চা জন্মের পর বাচ্চা যদি বেশি দুর্বল হয়ে থাকে তাহলে এ ধরনের বাচ্চাদের মাঝে মাঝে হাত-পা কাঁপা সমস্যা দেখা যায়। তবে আপনারা সঠিক চিকিৎসা গ্রহণের মাধ্যমে বাচ্চাদের হাত পা কাঁপা দূর করতে পারবেন।
  • বাচ্চা জন্মের পর যদি হাত-পা কাঁপার সমস্যা দেখা দেয় তাহলে অবশ্যই ভালো চিকিৎসকের নিকট পরামর্শ করে ফিজিওথেরাপি দিতে পারেন। তাই এজন্য ভালো একজন শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের নিকট চিকিৎসা গ্রহণ করবেন।
  • তাছাড়া অনেক সময় শিশুর জন্মের পর যদি পায়ে কোন সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে অনেক সময় হাত-পা কাঁপা সমস্যা দেখা দেয়। তবে এটি সচরাচর হয় না। শিশুরা সাধারণত এমনিতেই হাত পা কাঁপতে থাকে। শিশুরা বড় হয়ে গেলে তাদের হাত-পা কাঁপা বন্ধ হয়ে যায়।
  • আবার গর্ভকালীন সময়ে মায়েদের যদি সঠিকভাবে যত্ন না নেওয়া হয় তাহলে শিশু জন্মের পর শিশুর হাত পা কাপার সমস্যা দেখা দিতে পারে। এজন্য গর্ভকালীন সময়ে মায়েদের বিশেষ খেয়াল রাখুন এবং পুষ্টিকর খাবার খাওয়ানোর চেষ্টা করুন।
  • সাধারণত বাচ্চা জন্মের পর বাচ্চার শরীরের গ্লুকোজের মাত্রা কমে গেলে , ক্যালসিয়াম , ম্যাগনেসিয়ামের মাত্রা কমে গেলে এ সমস্যা হয়ে থাকে। তবে অনেক সময় মস্তিষ্কের জটিলতার কারণে হাতপা কাঁপা সমস্যা দেখা যায়। তাই আপনাদের বাচ্চা যদি হাত-পা কাঁপা সমস্যা অতিরিক্ত পর্যায়ে হয়ে থাকে তাহলে তৎক্ষণাৎ শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এর নিকট চিকিৎসা করাবেন।
  • আপনাদের বাচ্চাদের যদি হাত পা কেঁপে থাকে তাহলে তখন তাদের হাতপায়ে তেল মালিশ করার মাধ্যমে হাত-পা কাঁপা কমাতে করতে পারবেন।
  • তাছাড়াও বাচ্চাদের হাত পা কাঁপা কমাতে শিশুকে নিয়মিত হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে গোসল করানোর চেষ্টা করুন।
তাহলে আশা করছি প্রিয় পাঠক আপনারা বাচ্চাদের হাত-পা কাঁপে কেন এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে গেলেন। অতিরিক্ত পরিমাণে বাচ্চাদের যদি হাত পা কেঁপে থাকে তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের নিকট চিকিৎসা গ্রহণ করবেন। আর হাত-পা কাঁপা সমস্যা সাধারণত ছোটকালে অনেকেরই হয়ে থাকে তবে বাচ্চা বড় হওয়ার সাথে সাথে এ সমস্যা দূর হয়ে যায়। 
তাই অবশ্যই শিশুদের হাত পা কেঁপে থাকলে চিন্তিত হওয়ার কোনো কারণ নেই প্রাথমিকভাবে কিছু উপায় অবলম্বন করে হাত-পা কাঁপা সমস্যা সমাধান করবেন। তবে অতিরিক্ত হাত-পা কেঁপে থাকলে ডাক্তার দেখাবেন।

ঘুমের মধ্যে শরীর কাপে কেন

আপনাদের মধ্যে অনেকের ঘুমের মধ্যে শরীর কাপে থাকে। তবে আপনারা অনেকেই জানেন না কেন ঘুমের মধ্যে শরীর কাপে থাকে। তবে চিন্তার কোন কারণ নেই আজকের এই অংশে ঘুমের মধ্যে শরীর কাঁপে কেন এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করব। অনেক সময় দেখা যায় শিশুদের আবার ঘুমের মধ্যে শরীর কেঁপে থাকে। তবে কেন শিশুদের এই শরীর ঘুমের মধ্যে খাবে তা সম্পর্কে আপনারা এখন জানতে পারবেন। তবে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে ঘুমের মধ্যে শরীর কাপার কারণ জেনে নেই।
আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা কাজের মানসিক চিন্তায় রাতে ভালোমতো ঘুমাতে পারেন না। একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের রাতে কমপক্ষে সাত থেকে আট ঘন্টা ঘুমানো উচিত। তবে ঘুমানোর সময় যদি শরীর কাঁপা সমস্যা দেখা যায় তাহলে এটি খুবই বিরক্তকর হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু এই শরীর কাঁপা বিজ্ঞানের ভাষায় হিপনোটিক শেকিং বলা হয়ে থাকে। তাই ঘুমানোর সময় মানসিক চিন্তা মুক্ত হয়ে ঘুমাবেন। আবার শিশুর ক্ষেত্রে শিশু যদি রাতের বেলায় ঘুমের মধ্যে কোন খারাপ স্বপ্ন দেখে থাকে তখন তাদের শরীর কেঁপে থাকে।

তাছাড়া অনেক সময় মস্তিষ্কে ভুল বার্তা পাঠানোর কারণে এ ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। আমার অনেক সময় ঘুমের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের ভুলভাল স্বপ্ন দেখে থাকি। যার কারণে ঘুমের মধ্যে শরীর কেঁপে থাকে। ঘুমের মধ্যে অস্বাভাবিক স্বপ্ন অথবা মস্তিষ্ক ভুলভাল বার্তা প্রেরণ করলে শরীর কাঁপার সমস্যা দেখা যায়। মনে করেন আপনি ঘুমিয়ে আছেন এ সময় আপনার মস্তিষ্ক এমন একটি বার্তা পৌঁছালে যে আপনি আকাশ থেকে পড়ে যাচ্ছেন। তখন আপনারা ঘুম ভেঙে যাবে এবং শরীর কাঁপা সমস্যা হয়ে থাকতে পারে।

এছাড়াও রাতে ঘুমানোর আগে অতিরিক্ত টিভি দেখলে বা মোবাইল ফোন ব্যবহার করলে এ ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। অতিরিক্ত পরিমাণ টিভি দেখার কারণে অথবা মোবাইল স্ক্রিনে তাকিয়ে থাকার কারণে মস্তিষ্কে এক ধরনের হরমোন নিঃসৃত হয় যার প্রভাবেই রাতে হাত পা কাঁপা সমস্যা দেখা দিতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে নার্কোলেস্পির সমস্যা হয়ে থাকলে শরীর কাপা সমস্যাটি দেখা দেয়। এজন্য মোবাইল ফোন রাতে ঘুমানোর আগে কম ব্যবহার করুন।

রাতে ঘুমানোর সময় মানসিক শান্তি বজায় রেখে ঘুমাতে হবে। বিশেষ করে মন শান্ত যদি না থাকে এবং অতিরিক্ত উত্তেজিত অবস্থায় থাকে তখন এ ধরনের শরীর কাঁপা সমস্যা দেখা যায়। আবার সারাদিনের পরিশ্রমের পর আমাদের শরীর ক্লান্তি অনুভব করে। এজন্য আমরা শরীরের ক্লান্ত ভাব বা মানসিক চাপ দূর করতে রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যাই। তবে জানা গেছে মানসিক চাপ এ ধরনের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। তাই সবসময় স্ট্রেস মুক্ত থাকার চেষ্টা করুন।

শিশুর পা কাপার কারণ

আপনার অনেকেই শিশুর পা কাপার কারণ সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। তাদের জন্যই আমরা এই পাঠে শিশুর পা কাপার কারণগুলো সম্পর্কে আলোচনা করব। সাধারণত শিশুর পা বিভিন্ন কারণে কেঁপে থাকতে পারে। তবে দেখা গেছে শিশুরা যদি ভয় পেয়ে থাকে তাহলে তাদের পা কেঁপে থাকে। তাছাড়াও শিশু জন্মের পর পুষ্টিহীনতায় ভোগে থাকলে এ ধরনের পা কাপার সমস্যা দেখা যায়। 
তাই যত সম্ভব শিশুকে পুষ্টিকর খাবার ও ক্যালসিয়াম জাতীয় খাবার খাওয়ানোর চেষ্টা করুন। এছাড়াও অনেক শিশুর নরমাল ভাবে জন্মের পর থেকে হাত বা পা কেঁপে থাকে। তবে শিশুর বয়স বাড়ার সাথে সাথে এ ধরনের  পা কাঁপা সমস্যাটি দূর হয়ে যায়। গবেষণা জানা গেছে গর্ভকালীন সময়ে মায়েদের পুষ্টিকর খাবার ব্যবস্থা না করলে শিশু জন্মের পরে এ ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। 
আবার গর্ভকালীন মায়েরা যদি মানসিক চাপে থাকে তখন সে জন্মের পর তার প্রভাব পড়ে। আর এজন্য শিশুর এ ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। এজন্য গর্ভকালীন সময়ে মায়েরা চিন্তামুক্ত থাকবেন এবং কোন ধরনের মানসিক চাপ নিবেন না। আশা করছি আপনারা শিশুর পা কাপার কারণগুলো জানতে পেরেছেন।

হাত পা কাপা কিসের লক্ষণ

আপনি কি জানেন হাত-পা কাঁপা কিসের লক্ষণ। যদি না জেনে থাকেন তাহলে এই অংশের মাধ্যমে হাত-পা কাঁপা কিসের লক্ষণ এ সম্পর্কে জেনে নিন। আপনারা কিন্তু ইতিমধ্যেই শিশুদের হাত পা কাঁপে কেন এ সম্পর্কে জেনে এসেছেন। তবে এখন আপনাদের এই হাত পা কাঁপা কোন রোগের লক্ষণ এ সম্পর্কে জানা উচিত। হাত পা কাঁপা সাধারণত পারকিসন্স রোগের লক্ষণ প্রকাশ করে। 
আপনার বাচ্চার যদি অকারণে হাত-পা কেঁপে থাকে তাহলে তৎক্ষণাৎ ডাক্তারের নিকট পরামর্শ নিবেন। কারণ অকারণে হাত পা কাঁপা ভালো লক্ষণ নয়। অকারণে যদি যেকোনো কারুর হাত-পা কেঁপে থাকে তাহলে সেটি ভালো লক্ষণ নয়। তাই হাত পা কেঁপে থাকলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা গ্রহণ করবেন।পারকিসন্স রোগ হয়ে থাকলে প্রথমত হাত-পা কেঁপে থাকে। 

তারপর এ রোগে হাঁটতে সমস্যা দেখা যায় , রোগীরা সামনের দিকে ঝুঁকে হাঁটতে থাকে , অনেক সময় শরীর ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে এ ধরনের লক্ষণ প্রকাশ পায়। তাছাড়া জানা গেছে শিশুদের অটিজম রোগের কারণে হাত পা কেঁপে থাকে। তাই আপনার শিশুর হাত-পা কাপে কিনা এবং অটিজম রোগ হয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখুন। তাহলে আপনারা বুঝতে পারলেন হাত পা কাঁপা কিসের লক্ষণ।

শরীর হাত পা কাপা কমানোর উপায়

শিশুদের হাত-পা কাপে কেন এ সম্পর্কে জানার পর আপনাদের অবশ্যই শরীর হাত-পা কাঁপা কমানোর উপায় সম্পর্কে জেনে রাখতে হবে। তার আগে অবশ্যই আপনাকে হাত বা পা কাপার কারণ গুলো খুঁজে বের করতে হবে তারপর সঠিক উপায় অবলম্বন করার মাধ্যমে হাত পা কাঁপা দূর করতে পারবেন। সাধারণত বিভিন্ন ধরনের স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ গ্রহণের ফলে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় এ ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। 

আপনার কোন ওষুধে পার্শ্বপ্রতিক্রি আছে কিনা তা জানতে হবে এবং কোন ওষুধে যদি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থেকে থাকে তাহলে সেই ওষুধটি খাওয়া বন্ধ করে দিলেই আপনার এই ধরনের সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে। তাছাড়া আপনারা হাত পা কাঁপা কমানোর জন্য দুশ্চিন্তা মুক্ত জীবন যাপন করতে হবে এবং নিয়মিত রাতে সঠিকভাবে ঘুমাতে হবে। এছাড়াও প্রতিদিন নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার গ্রহণের মাধ্যমে হাত-পা কাঁপা কমানো যায়। আবার হাত পা কাপার চিকিৎসার জন্য প্রোপানলল ওষুধ ডাক্তাররা দিয়ে থাকে। 

তবে আপনাদের যদি এ ধরনের সমস্যা বেশি হয়ে থাকে তাহলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের নিকট চিকিৎসা নিবেন। আপনার হয়তো জেনে গেছেন পারকিনসন রোগের কারণে এ ধরনের সমস্যা হয়। আর পারকিনসন রোগের চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদি হয়ে থাকে। তাই আপনারা শরীর হাত পা কাঁপা কমানোর উপায় হিসেবে উপরোক্ত পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করতে পারেন। আর অতিরিক্ত পরিমাণ সমস্যা দেখা দিলে চিকিৎসা গ্রহণ করুন।

হাত পা কাপার চিকিৎসা

আপনার অনেকে আছি যারা হাত পা কাপার চিকিৎসা সম্পর্কে জানি না। জানতে হলে অবশ্যই আজকের আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।যদি এ ধরনের সমস্যা ঘটে তবে প্রথমে স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ খাওয়া বন্ধ করুন। তাহলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। এছাড়াও একটি আরামদায়ক জীবনযাপন শুরু করবেন। এর মানে হল যে ভাল ঘুম, একটি ঝামেলামুক্ত জীবন এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণ করা।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই হাত পা কাঁপা রোগটি নিরাময় হয়ে যায়। কিন্তু যদিও এটি একেবারেই ভালো হয় না, বর্তমানে দেশে ডিবিএস নামে এক ধরনের বিশেষ চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে। এই পদ্ধতি ভাল কাজ করে স্নায়ু বা হরমোনজনিত সমস্যায়। ব্যাধির কারণে যদি আপনার হাত-পা কাঁপতে থাকে, তাহলে আপনাকে অবিলম্বে একজন ডাক্তারের সাথে দেখা করা উচিত।

শেষ কথা

আপনারা এতক্ষণে বাচ্চাদের হাত পা কাপে কেন এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে গেছেন। তাছাড়াও বাচ্চাদের হাত পা কেন কাঁপে এবং শরীর কাপার লক্ষণ গুলো সম্পর্কে জানতে পারলেন। আপনাদের যদি এ ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে অতি দ্রুত ডাক্তারে নিকট যাবেন এবং চিকিৎসা গ্রহণ করবেন। এছাড়াও বাচ্চাদের হাত-পা কেঁপে থাকলে তেল বা লোশন মালিশ করার মাধ্যমে এ সমস্যা দূর করতে পারবেন। আপনার পরিচিতদের শিশুদের হাত-পা কাপে কেন এ সম্পর্কে জানাতে পোস্টটি শেয়ার করুন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url