সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত ও কোন কাজের বেতন বেশি জানুন

প্রিয় বন্ধুরা, আপনাদের মধ্যে অনেকে আছে যারা ইলেকট্রিশিয়ানের কাজে অভিজ্ঞ এবং পারদর্শী। তারা অনেকেই সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজ করতে চাই। এজন্য অনেক ব্যক্তিরা সৌদি আরবে যাওয়ার আগে সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে জানতে চান। তাদের কথা ভেবে আমরা আজকের এই আর্টিকেলটিতে সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত ও সৌদি আরবের কোন কাজের বেতন বেশি এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা তুলে ধরার চেষ্টা করব।
সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত
আর্টিকেলসূচিপত্রঃআপনারা যদি সৌদি আরবে কাজের উদ্দেশ্যে যেতে চান তাহলে অবশ্যই সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি ও সৌদি আরবের ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে জানতে হবে। আর এই বিষয়গুলো সম্পর্কে পোস্টটিতে গুরুত্ব সহকারে আলোচনা করা হবে।

ভূমিকা

বর্তমানে কাজের উদ্দেশ্যে আমাদের দেশ থেকে হাজার হাজার মানুষ সৌদি আরবে যাচ্ছে। সৌদি আরবে বিভিন্ন ধরনের কাজে বিশেষ চাহিদা রয়েছে যার কারণে বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষজন কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে। তবে আপনি যদি সৌদি আরবে কাজের জন্য যেতে চান তাহলে আপনাদের সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি সে সম্পর্কে জানতে হবে। সৌদি আরবে যাওয়ার আগে অবশ্যই যে কোন কাজে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। 

কারণ আপনি যদি কোন কাজে পারদর্শী না হয়ে সে দেশে যান তাহলে তেমন পারিশ্রমিক পাবেন না। এজন্য আপনি যেকোনো একটি বিষয়ে অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা অর্জন করে যাবেন তাহলে আপনার পারিশ্রমিক অর্থাৎ মাসিক বেতন অনেক হবে। সৌদি আরবে বিভিন্ন ধরনের কাজগুলোর মধ্যে অন্যতম কাজ হলো ইলেকট্রিক কাজ। সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের চাহিদা দিন দিন বেড়ে চলেছে। 

এজন্য সৌদি আরব ইলেকট্রিক কাজের জন্য প্রচুর লোক নিয়োগ করছে। এজন্য আপনারা যারা ইলেকট্রিশিয়ান কাজ করতে পারেন অর্থাৎ ইলেকট্রিশিয়ান কাজে অভিজ্ঞতা রয়েছে তারা অবশ্যই সৌদি আরবের ইলেকট্রিশিয়ান কাজ করতে পারবেন। মাস শেষে ভালো পরিমাণ আয় করতে পারবেন। তবে এই ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত সে সম্পর্কে এখন আমরা বিস্তারিত আলোচনা করব।

সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত

সৌদি আরবের বর্তমান ইলেকট্রিক কাজের চাহিদা প্রচুর রয়েছে যার কারণে এখানে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ইলেকট্রিশিয়ান এর প্রয়োজন পড়ে। আপনারা যারা ইলেকট্রিশিয়ান কাজে দক্ষতা অর্জন করেছেন তারা এখানে কাজ করতে পারেন। ইলেকট্রিক কাজ করার জন্য অবশ্যই দক্ষতা থাকতে হবে। সৌদি আরবের ইলেকট্রিক কাজ করে আপনারা অনায়াসেই ১৮০০ থেকে ২০০০ রিয়াল আয় করতে পারবেন। 
তবে এখানে কোম্পানিগুলোতে ওভারটাইম করা সুযোগ সুবিধা রয়েছে যার কারণে আপনি যদি ওভারটাইম কাজ করেন তাহলে মাসে প্রায় ২২০০ পর্যন্ত বেতন পেতে পারেন। যা বাংলাদেশের টাকা হিসেবে দাঁড়াই ২ লক্ষ টাকার কাছাকাছি। তাহলে বুঝতে পারছেন সৌদি আরবের ইলেকট্রনিক কাজ করে অনেক টাকা উপার্জন করা যায়। তাছাড়াও এখানে কোম্পানিগুলো আপনার থাকার জন্য বাসস্থান ও খাবার ব্যবস্থা খরচ বহন করবে। আর যাতায়াতের খরচ আপনাকে বহন করতে হবে।

সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি

আপনাদের মধ্যে যেসব ব্যক্তিরা সৌদি আরবে কাজের জন্য যেতে চান তাদের অবশ্যই সৌদি আরব যাওয়ার আগে সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি এ সম্পর্কে জানতে হবে। তাহলে আপনারা সেই বিষয়টি সম্পর্কে জেনে কাজ নির্বাচন করতে পারবেন। সৌদি আরবে বিভিন্ন ধরনের কাজ করা সুযোগ রয়েছে। কাজের উপর নির্ভর করে বেতন নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। মূলত কাজের ধরন অনুযায়ী আলাদা পারিশ্রমিক হয়ে থাকে। 
তাছাড়াও একজন কর্মীর কাজের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার উপর নির্ভর করে বেতন কমবেশি হয়ে থাকে। আপনারা যদি সৌদি আরবে বেশি বেতনে চাকরি করতে চান তাহলে অবশ্যই যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষ হয়ে কাজে যোগ দিতে হবে। সৌদি আরবের সাধারণত অদক্ষ কর্মীদের কম বেতনে চাকরি দেওয়া হয় অর্থাৎ কম বেতন দেওয়া হয়। 

সে ক্ষেত্রে আপনারা সৌদি আরবে যাওয়ার আগে কাজের ট্রেনিং নিবেন। বর্তমানে বাংলাদেশে সৌদি আরব কাজ সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ের ট্রেনিং দেওয়া হয়। আপনারা সেই ট্রেনিং গুলো করে পরিপূর্ণভাবে দক্ষ হয়ে সৌদি আরবে গিয়ে চাকরি করবেন তাহলে আপনারা বেশি বেতনের পারিশ্রমিক পাবেন। তবে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি সে সম্পর্কে জেনে নেই।

ইলেকট্রিশিয়ানঃ সৌদি আরবে সবচেয়ে বেশি বেতনের কাজ হলো ইলেকট্রিশিয়ান এর কাজ। বর্তমানে সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের চাহিদা প্রচুর বৃদ্ধি পেয়েছে। আপনারা যারা দক্ষ ইলেকট্রিশিয়ান রয়েছেন তারা এই কাজটি সৌদি আরবে করে প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন। দক্ষ শ্রমিকদের জন্য এ কাজে বেশি বেতন দেওয়া হয়। এই ইলেক্ট্রিশিয়ান কাজের জন্য প্রতিবছর হাজার হাজার শ্রমিক বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে যাচ্ছে এবং তারা টাকা আয় করে দেশের রেমিটেন্স পাঠাচ্ছে। ইলেকট্রিশিয়ান কাজ করলে আপনারা সহজেই মাসিক ২ থেকে ৩ লক্ষ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

প্লাম্বিং কাজঃ বর্তমানে সৌদি আরবে ইলেক্ট্রিশিয়ান কাজের পাশাপাশি প্লাম্বিং কাজের অনেক চাহিদা রয়েছে। যার কারণে এই কাজে বেশি বেতন দেওয়া হয়ে থাকে। আমাদের দেশ থেকে প্রচুর শ্রমিক প্লাম্বিং কাজ করার জন্য সৌদি আরবে যাচ্ছে। এই কাজটি সহজ হওয়ায় যে কেউ হালকা ট্রেনিং করে বুঝতে পারে। তাই আপনারা প্লাম্বিং কাজটি শিখে সৌদি আরবে প্লাম্বিং কাজ করতে পারেন। এই কাজ করে সৌদি আরবে ১৫০০ থেকে ২০০০ রিয়াল পর্যন্ত পেতে পারেন। তাছাড়াও যারা ওভারটাইম করতে পছন্দ করেন তারা ওভারটাইম করে বেশি ইনকাম করতে পারবেন।

অটোমোবাইলঃ বিশ্বে বর্তমানে অটোমোবাইল কাজের চাহিদা বেড়ে চলেছে। সেভাবেই সৌদি আরবে অটোমোবাইল কাজের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। যার কারণে প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ শ্রমিক এই কাজের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়। আপনারা যারা অটোমোবাইল কাজ সম্পর্কে ভালোমতো জানেন এবং দক্ষতা রয়েছে তারা অতি সহজেই এই কাজটি করে প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন। যাতে দক্ষতা বেশি রয়েছে তারা এই কাজ করে বেশি বেতন পাবেন। 

আমাদের দেশ থেকে অনেক শ্রমিক অটোমোবাইল কাজ করার জন্য সৌদি আরবে যাচ্ছে এবং তারা ভালো একটা মাসিক ইনকাম করছে। আপনারা যারা এখনো যাননি তারা এই কাজটি শিখে সৌদি আরবে যেতে পারেন। আর আপনারা যদি সৌদি আরবে ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় গিয়ে থাকেন তাহলে এই অটোমোবাইল কাজটি করাই সবচেয়ে ভালো হবে।

প্রযুক্তি গত টেকনিশিয়ানঃ সৌদি আরবে আইটি সেবার মান উন্নত করার জন্য বর্তমানে অনেক টেকনিশিয়ানদের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে প্রযুক্তি কত টেকনিশিয়ান যারা রয়েছেন তাদেরকে বেশি সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে দেশকে উন্নত করার জন্য এ কাজের চাহিদা বেড়ে চলেছে। সৌদি আরবে অনেক সরকারি আইটি সেবা প্রতিষ্ঠান রয়েছে যেখানে দক্ষতা সম্পন্ন টেকনিশিয়ানদের প্রয়োজন হয়। তারা বাইরের দেশ থেকে টেকনিশিয়ান নিয়ে থাকে। 

আপনারা যারা বাংলাদেশে প্রযুক্তি বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করেছেন তারা এই কাজটি করতে পারেন। আইটি সেবা বা টেকনিশিয়ান সম্পর্কে যারা ভালোমতো জানেন তারা এই কাজের জন্য সৌদি আরবে যেতে পারেন। আর এই কাজটির চাহিদা দিন দিন বেড়ে যাওয়ার কারণে এই কাজের বেতন বেশি দেওয়া হচ্ছে। সৌদি আরবে টেকনিশিয়ান কাজের জন্য মাসিক ১০০০ রিয়াল থেকে ১৫০০ রিয়াল পর্যন্ত দেওয়া হয়ে থাকে। তাছাড়া ওভারটাইম করলে ২০০০ রিয়াল পর্যন্ত আয় করা সম্ভব।

ওয়েল্ডিং শ্রমিকঃ সৌদি আরবে বড় ধরনের বিল্ডিং তৈরি করার জন্য বর্তমানে ওয়েল্ডিং শ্রমিক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। নতুন কনস্ট্রাকশন কাজের জন্য এই ওয়েল্ডিং শ্রমিকের প্রয়োজন হয়। যার কারণে ওয়েল্ডিং শ্রমিকের চাহিদা রয়েছে। আপনাদের মধ্যে যারা ওয়েল্ডিং এর কাজ ভালো পারেন বা দক্ষতা রয়েছে তারা এই কাজের জন্য সৌদি আরবে গমন যেতে পারেন। 
আর এই কাজটি করে অনায়াসেই বাংলাদেশী টাকায় প্রতি মাসে ১ লক্ষ টাকার উপরে আয় করা যাবে। সৌদি আরবে যেহেতু কনস্ট্রাকশন এর কাজ বৃদ্ধি পাচ্ছে তাহলে এই কাজের জন্য প্রচুর মানুষ আবেদন করতে পারবে। তাই যারা এই ওয়েল্ডিং কাজের পারদর্শী তারা দ্রুত ওয়েল্ডিং ভিসায় কম খরচে সৌদি আরবে যেতে পারেন।

সাধারণত সৌদি আরবে উপরোক্ত কাজগুলোর বেশি চাহিদা রয়েছে, যার ফলে এ কাজের বেতন বেশি হয়ে থাকে। আপনারা চাইলে সেই কাজগুলো শিখে পারদর্শী হয়ে সৌদি আরবে কাজের উদ্দেশ্যে যেতে পারেন। সৌদি আরবে কাজ করে ভালো বেতনে চাকরি করতে চাইলে অবশ্যই দক্ষ হয়ে যেতে হবে। আর যদি অদক্ষ শ্রমিক হিসাবে সৌদি আরবে যান তাহলে কম বেতনের চাকরি করতে হবে। তাই আমার মতে আপনাদের দক্ষ হয়ে সৌদি আরবে যাওয়ায় ভালো হবে।

সৌদি আরবের কোম্পানি ভিসা বেতন কত

আপনাদের মধ্যে অনেকে আছেন যারা সৌদি আরবের কোম্পানি ভিসা বেতন কত এ সম্পর্কে জানতে চান। তাদের জন্য আমার এই অংশে সৌদি আরবের কোম্পানি ভিসা বেতন কত হতে পারে সে সম্পর্কে তুলে ধরার চেষ্টা করব। আপনারা যারা সৌদি আরবে কোম্পানি ভিসায় কাজ করতে যেতে চাচ্ছেন তাদের অবশ্যই কোম্পানি ভিসা বেতন কত সে সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে।

তবে সৌদি আরবের কোন কোম্পানির ভিসায় আপনি যাচ্ছেন তার ওপর নির্ভর করে বেতন নির্ধারণ হয়ে থাকে। কিন্তু বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে সৌদি আরবের কোম্পানি ভিসার বেতন সাধারণত ৫০ হাজার টাকা থেকে ৯০ হাজার টাকা পর্যন্ত হতে পারে। তাহলে বলা যায় সৌদি আরবের কোম্পানি ভিসায় সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা বেতনের চাকরি করতে পারবেন। তবে বিভিন্ন কোম্পানি অনুযায়ী বেতনের কমবেশি পার্থক্য দেখা দিতে পারে।

সৌদি আরব কোন ভিসা ভালো

সৌদি আরবে যাওয়ার জন্য অনেক ধরনের ভিসা রয়েছে। এর মধ্য থেকে সৌদি আরব কোন ভিসা ভালো সে বিষয়টি সম্পর্কে আমার আলোচনা করব। সৌদি আরবে কাজের জন্য যেতে চাইলে কোন ভিসাটি আপনার জন্য ভালো হবে সে সম্পর্কে জেনে রাখতে হবে। এজন্য আমরা আজকের এই অংশে সৌদি আরব কোন ভিসাটি ভালো হবে তা বিস্তারিত তুলে ধরবো। সৌদি আরবে কাজের উদ্দেশ্যে যাওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের ভিসা রয়েছে। যেমনঃ
  • মাজরার ভিসা
  • সৌদি ফ্রি ভিসা
  • সুপার মার্কেট ভিসা
  • আমেল আইদি ভিসা
  • সৌদি কোম্পানি ভিসা
  • ক্লিনার ভিসা
  • আমেল আইডি ভিসা
উপরোক্ত ভিসা গুলোর মধ্যে আমেল আইডি বা ফ্রি ভিসাতে বেশি সুযোগ সুবিধা পাওয়া যায়। যার কারণে আমেল আইডি এবং ফ্রি ভিসা সবচেয়ে ভালো। তবে বর্তমানে ফ্রি ভিসা বন্ধ থাকার কারণে আপনারা আমেল আইডি ভিসাতে সৌদি আরবে যেতে পারেন। আমেল আইদি ভিসা অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের জন্য সবচেয়ে ভালো। কারণ দক্ষ শ্রমিকদের জন্য এই ভিসায় অনেক সুযোগ সুবিধা দেওয়া হয়ে থাকে। 

তাছাড়া আপনারা সৌদি কোম্পানি ভিসাতেও সৌদি আরবে যেতে পারেন। এই ভিসাতে অনেক রকম সুবিধা পাওয়া যায় তার মধ্যে অন্যতম হলো কোম্পানিতে ভালো বেতনের চাকরি পাওয়া যায়। আপনার নির্দিষ্ট কোম্পানিতে ভালো বেতনে চাকরি করতে পারবেন এই ভিসাতে। কোম্পানি ভিসায় যেতে হলে অবশ্যই আপনাকে দক্ষ ও অভিজ্ঞ হয়ে যেতে হবে। এছাড়াও আপনারা যারা অদক্ষ বা কোন কাজে অভিজ্ঞতা নেই তারা চাইলে উপরের লিস্টের যেকোন ভিসাতে যেতে পারেন।

সৌদি আরব ক্লিনার ভিসা বেতন কত

অনেকে আছেন যারা সৌদি আরবে ক্লিনিং কাজের জন্য যেতে চান। তারা চাইলে সৌদি আরব ক্লিনার ভিসাতে যেতে পারেন। সৌদি আরব ক্লিনার ভিসার মধ্যে অনেক ধরনের কাজ রয়েছে। যেমনঃ মসজিদ ক্লিনার, রোড ক্লিনার, হসপিটাল ক্লিনার ও বাসাবাড়ি ক্লিনার সহ আরো অনেক ধরনের ক্লিনার কাজ রয়েছে। কাজের ধারণা অনুযায়ী বেতন আলাদা হয়ে থাকে। 
তবে সাধারণত সৌদি আরব ক্লিনার ভিসার কাজের জন্য বেতন সর্বনিম্ন ৪০ হাজার টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। আশা করছি বুঝতে পেরেছেন আপনি যদি ক্লিনার কাজে পারদর্শী হয়ে থাকেন তাহলে ক্লিনার ভিসায় সৌদি আরবে গিয়ে ক্লিনিং কাজ করে ভালো বেতন পেতে পারেন।

সৌদি আরব যেতে বয়স কত লাগে

আপনারা সবাই একটি প্রশ্ন করে থাকেন সেটি হল সৌদি আরবে যেতে বয়স কত লাগে? তাদের প্রশ্নের উত্তরে আমরা এখন এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। সৌদি আরবে যেতে সর্বনিম্ন ২১ বছর বয়স হতে হয়। মূলত সৌদি আরবে কাজ করতে হলে আপনার বয়স ২১ বছর হতে হবে। ২১ বছরের কম হলে আপনি সৌদি আরবে কোন কাজ করতে পারবেন না। তাছাড়াও সৌদি আরবে কাজের ক্ষেত্রে ভিসা আবেদন করার জন্য আপনার বয়স ২১ থেকে ৪৫ এর মধ্যে হতে হবে।

সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি

প্রবাসীদের জন্য সৌদি আরবে অনেক রকম কাজ রয়েছে। সৌদি আরব সরকার প্রতিবছর কাদের জন্য লক্ষ লক্ষ শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে থাকে। আপনাদের মধ্যে যারা সৌদি আরবে কাজ করার জন্য যাবেন তাদের অবশ্যই সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদাটি বেশি সে সম্পর্কে জানতে হবে। সৌদি আরবে কমবেশি প্রায় সকল ধরনের কাজের চাহিদা বেশি রয়েছে, 
এর ফলে সকল কাজেই বেতন বেশি পাওয়া যায়। তবে সাধারণত কিছু কাজ রয়েছে যেগুলো সৌদি আরবে সবচেয়ে বেতন দেওয়া হয় এবং সেই কাজের চাহিদা গুলো বেশি হয়ে থাকে। এই কাজের চাহিদাগুলো সব সময় সৌদি আরবে বেশি থাকে যার কারণে তাদের বেতন বেশি দেওয়া হয়। কোন কাজের চাহিদা বেশি এ সম্পর্কে নিম্ন তুলে ধরা হলোঃ
  • রংমিস্ত্রি
  • ইলেকট্রিশিয়ান
  • অটোমোবাইল সার্ভিসিং
  • কনস্ট্রাকশন
  • প্লাম্বিং
  • টেকনিশিয়ান
সাধারণত উপরের লিস্টে দেওয়া কাজ গুলোর চাহিদা সৌদি আরবে বেশি। এই কাজগুলো যারা ভালো করে করতে পারেন তারা সৌদি আরবে গিয়ে কাজগুলো করতে পারেন।

সৌদি আরবে ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত এ সম্পর্কিত সাধারণ জিজ্ঞাসা(FAQ)

প্রশ্নঃসৌদিতে ইলেকট্রিশিয়ান বেতন কত?
উত্তরঃ সৌদিতে ইলেকট্রিশিয়ান বেতন সাধারণত ১৪০০ থেকে ১৫০০ রিয়াল পর্যন্ত হয়ে থাকে।

প্রশ্নঃসৌদি আরব কোন ভিসা ভালো হবে?
উত্তরঃ সৌদি আরবে আমেল আইডি ভিসা বা ফ্রি ভিসা সবচেয়ে বেশি ভালো হবে।

প্রশ্নঃসৌদি আরবে কি কাজের ভিসা চালু আছে?
উত্তরঃ হ্যাঁ, সৌদি আরবে কাজের ভিসা চালু আছে। সৌদি আরবের কাজের ভিসা পাওয়ার জন্য যোগ্যতা প্রমাণ করতে হয় অর্থাৎ নির্দিষ্ট পরীক্ষায় পাশ করতে হয়।

প্রশ্নঃসৌদি আরবের হোটেল ভিসা বেতন কত?
উত্তরঃ সৌদি আরবে হোটেল ভিসা বেতন ১৩০০-১৪০০ রিয়াল পর্যন্ত হয়ে থাকে।

প্রশ্নঃসৌদি ভিজিট ভিসা পেতে কত দিন লাগে?
উত্তরঃ সৌদি ভিজিট ভিসা পেতে সাধারণত ৩ থেকে ২ দিন সময় লাগতে পারে। তবে ইমারজেন্সি হলে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ভিজিট ভিসা পাওয়া যায়।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক আশা করছি আজকের সম্পূর্ণ পোস্টটিতে আপনারা সৌদি আরবের ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত ও সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি এ সম্পর্কিত বিস্তারিত সকল তথ্য জানতে পেরেছেন। তাছাড়াও সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি এ সম্পর্কেও আলোচনা করা হয়েছে যার মাধ্যমে আপনারা বুঝতে পারবেন কোন সৌদি আরবে কাজের জন্য বেশি বেতন পাওয়া যায়। সৌদি আরবের কাজের বেতন সম্পর্কে বন্ধুদের জানাতে পোস্টটি শেয়ার করতে পারেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url