মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত দেওয়া হয়ে থাকে ২০২৪ আপডেট

প্রিয় বন্ধুরা আপনারা নিশ্চয়ই মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে জানার জন্যই আজকের পোস্টটিতে এসেছেন। তবে আপনারা চিন্তিত হবেন না, কারণ আজকের এই আর্টিকেলটিতে মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত ও মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন কত এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হবে।
মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত
আর্টিকেলসূচিপত্রঃপ্রিয় পাঠক আপনারা যদি মালয়েশিয়া কাজের বেতন কত ও মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে চান তাহলে অবশ্যই পোস্টটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন। কারণ আজকের আর্টিকেলে মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজ সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হবে।

ভূমিকা

প্রতিবছর আমাদের দেশ থেকে হাজার হাজার মানুষ মালয়েশিয়াতে কাজের উদ্দেশ্যে যাচ্ছে। এরমধ্যে অনেকেই মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজের জন্য যেয়ে থাকে। তবে আপনারা যারা মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজ করতে যেতে চান তাদের অবশ্যই মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজের জন্য কত বেতন দেওয়া হয় তা সম্পর্কে জেনে রাখতে হবে। 

আপনারা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজের জন্য যেতে পারেন। মালয়েশিয়াতে নির্মাণ শ্রমিকদের বিশেষ সুযোগ সুবিধা দেয়া হয়ে থাকে। তাছাড়াও মালয়েশিয়ায় দক্ষ নির্মাণ শ্রমিকদের বেশি চাহিদা রয়েছে। মালয়েশিয়া দেশটিতে প্রায় বড় আকারের নির্মাণ প্রজেক্ট চালু রয়েছে। যার কারণে এই দেশটিতে প্রচুর নির্মাণ শ্রমিকের প্রয়োজন হয়। 
আর এসব নির্মাণ শ্রমিকদের ভালো বেতন দেওয়া হয়ে থাকে। আপনারা যারা কনস্ট্রাকশন কাজ ভালোমতো পারেন অথবা দক্ষতা রয়েছে তারা চাইলে মালয়েশিয়াতে গিয়ে কনস্ট্রাকশন কাজ করতে পারেন। তবে কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে ভালোভাবে জানার মাধ্যমে আপনি সঠিক ভিসা সিলেক্ট করে মালয়েশিয়াতে যেতে পারবেন।

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন কত

আপনাদের মত অনেকে আছে যারা মালয়েশিয়াতে ফ্যাক্টরি ভিসায় কাজ করতে চান। তাদের অবশ্যই মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন কত এ সম্পর্কে জানতে হবে। আর এজন্য আমরা আজকের এই অংশটিতে ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন কত এ সম্পর্কে কিছু আলোচনা করব। আপনারা যদি মালয়েশিয়াতে ফ্যাক্টরি ভিসায় যেতে পারেন তাহলে অনেক ধরনের সুযোগ সুবিধা পাবেন।তাছাড়াও ফ্যাক্টরি ভিসায় কাজের বেতন বেশি দেওয়া হয়ে থাকে। 

এর পাশাপাশি কোম্পানিগুলো থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করে থাকে। এজন্য বর্তমানে মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসার প্রচুর চাহিদা রয়েছে। আপনারা এই ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়াতে যে কোন ফ্যাক্টরিতে কাজ করতে পারবেন। তাছাড়াও ফ্যাক্টরিতে ওভারটাইম করার সুযোগ সুবিধা রয়েছে। যার কারণে আপনারা মাস শেষে একটি ভালো বেতন পাবেন। 
মালয়েশিয়াতে ফ্যাক্টরি ভিসার বেতন নির্ভর করে শ্রমিকের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা এবং কাজের উপর। শ্রমিকের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা ভালো থাকলে বেশি বেতন দেওয়া হয়ে থাকে। আর যারা নতুন তাদের একটু কম বেতন দেওয়া হয়। যারা নতুন আছেন তারা যদি ধীরে ধীরে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন তাহলে তাদের বেতন বাড়ানো হয়ে থাকে। 

মালয়েশিয়াতে ফ্যাক্টরির ভিসায় বেশি বেতন পেতে হলে অবশ্যই প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজে যোগ দিতে হবে অর্থাৎ আপনি সঠিক প্রশিক্ষণ ও দক্ষতা অর্জন করে মালয়েশিয়ায় ফ্যাক্টরিতে কাজ করবেন। তাহলে আপনারা মাস শেষে ভালো বেতন পাবেন। সাধারণত নতুনদের জন্য মালয়েশিয়াতে ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন আনুমানিক প্রায় ৫০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা দেওয়া হয়ে থাকে। 

আর যারা অভিজ্ঞ এবং ওভারটাইম কাজ করে তাদের বেতন সাধারণত ৬০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়ে থাকে। তাহলে বুঝতে পারছেন মালয়েশিয়াতে নতুন অবস্থায় ফ্যাক্টরি ভিসা কাজের বেতন কম হয়ে থাকে। আর যারা অভিজ্ঞ এবং পুরাতন কর্মী তাদের বেশি বেতন দেওয়া হয়ে থাকে। তবে আপনার নতুনরাও চাইলে ওভারটাইম কাজ করার মাধ্যমে বেতন বাড়াতে পারেন। কারণ ফ্যাক্টরিতে ওভারটাইম করার সুযোগ রয়েছে। যেখানে আলাদা করে বেতন দেওয়া হয়।

মালয়েশিয়া সুপার মার্কেট বেতন কত

আপনারা যারা মালয়েশিয়াতে গিয়ে সুপার মার্কেটে কাজ করতে চান তাদের অবশ্যই যাওয়ার পূর্বে মালয়েশিয়ার সুপার মার্কেট বেতন কত এ সম্পর্কে ধারণা রাখা উচিত। আপনাদের মধ্যে অনেকে আছে যারা মালয়েশিয়াতে গিয়ে সুপার মার্কেটে কাজ করেন। তবে যারা নতুন মালয়েশিয়াতে গিয়ে কাজ করতে চান তাদের সুপার মার্কেট বেতন সম্পর্কে আইডিয়া রাখতে হবে।
যাতে করে আপনারা প্রশিক্ষণ নিয়ে মালয়েশিয়াতে গিয়ে সুপার মার্কেটে বেশি বেতনের কাজ করতে পারেন। তার পাশাপাশি অনেক ব্যক্তির মালয়েশিয়া সুপার মার্কেটের বেতন পছন্দ নাও হতে পারে। এজন্য এই বিষয়টি সম্পর্কে ক্লিয়ার ধারণা রাখা উচিত। মালয়েশিয়াতে বিভিন্ন কাজের চাহিদা রয়েছে। তার মধ্যে সুপার মার্কেট কাজের অনেক চাহিদা রয়েছে।

বর্তমানে মালয়েশিয়া সুপার মার্কেট বেতন নতুন শ্রমিকদের আনুমানিক প্রায় ৪০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকার মধ্যে হয়ে থাকে। আর অভিজ্ঞ ও দক্ষতা সম্পন্ন শ্রমিকদের বেতন আনুমানিক প্রায় ৬০ হাজার থেকে ৯০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। আপনারা যদি মালয়েশিয়া সুপার মার্কেট কাজ সম্পর্কিত প্রশিক্ষণ নিয়ে মালয়েশিয়া যেতে পারেন তাহলে মাসিক ভালো বেতনের চাকরি করতে পারবেন।

মালয়েশিয়া রেস্টুরেন্ট ভিসা বেতন কত

অনেক ব্যক্তি রয়েছে যারা রেস্টুরেন্টের কাজ সম্পর্কে ভালো জানেন। তারা অনেকেই মালয়েশিয়া রেস্টুরেন্ট ভিসাই গিয়ে রেস্টুরেন্টে কাজ করে থাকেন। আপনারা যদি মালয়েশিয়াতে রেস্টুরেন্ট ভিসায় যেতে পারেন তাহলে মালয়েশিয়াতে রেস্টুরেন্টে কাজ করতে পারবেন। আর মালয়েশিয়ার রেস্টুরেন্ট ভিসা বেতন কত এ সম্পর্কে আপনি যদি না জেনে থাকেন তাহলে এখন ভালোভাবে জেনে নিন। 

মালয়েশিয়া রেস্টুরেন্ট ভিসা বেতন সাধারণত নির্ভর করে আপনার কাজের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতার উপর। আপনি ভালো দক্ষতা সম্পন্ন হয়ে থাকলে রেস্টুরেন্ট ভিসা অর্থাৎ রেস্টুরেন্ট এর কাজে ভালো বেতন পাবেন। অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ও দক্ষ কর্মীদের মালয়েশিয়া রেস্টুরেন্ট ভিসা বেতন সাধারণত ৬০ হাজার টাকার মধ্যে হয়ে থাকে। আর যারা নতুন ও কাজে তেমন অভিজ্ঞতা নেই তাদের বেতন ৪০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকার মধ্যে হয়ে থাকে।

মালয়েশিয়া রাজমিস্ত্রি বেতন কত

আমাদের দেশে অনেক কর্মী রয়েছে যারা রাজমিস্ত্রি কাজে পারদর্শী, তারা চাইলে মালয়েশিয়াতে ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় গিয়ে রাজমিস্ত্রির কাজ করতে পারেন। বর্তমানে মালয়েশিয়াতে নির্মাণ কাজের চাহিদা বেড়ে যাওয়ার কারণে রাজমিস্ত্রির কাজের জন্য প্রচুর শ্রমিক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। মালয়েশিয়াতে বড় বড় বিল্ডিং তৈরি করার জন্য রাজমিস্ত্রির প্রয়োজন হচ্ছে। এর ফলে তারা রাজমিস্ত্রিদের কাজের জন্য বেতন বেশি প্রদান করছে। 
মালয়েশিয়া রাজমিস্ত্রি বেতন কত
মালয়েশিয়ার রাজমিস্ত্রি বেতন ৩০০০০ থেকে ৫০০০০ টাকা। যাদের রাজমিস্ত্রি কাজে তেমন অভিজ্ঞতা নেই তাদের ৩০ হাজার টাকা দেওয়া হয়। আর অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ও কাজে পারদর্শী সেসব শ্রমিকদের ৫০ হাজার টাকা এর বেশি বেতন দেওয়া হয়ে থাকে। তাহলে বুঝতে পারছেন আপনি যদি রাজমিস্ত্রির কাজ ভালোমতো করতে পারেন তাহলে মালয়েশিয়াতে রাজমিস্ত্রির কাজ করে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত

আপনারা হয়তো এতক্ষণে মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত দেওয়া হয় এ সম্পর্কে জানার জন্য অপেক্ষা করে রয়েছেন। তবে চিন্তার কারণ নেই, এখন আমরা মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজে বেতন কেমন দেওয়া হয়ে থাকে তা সম্পর্কে তুলে ধরার চেষ্টা করব। মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজের সময় সকাল আটটা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত অর্থাৎ আপনাকে সকাল আটটা থেকে পাঁচটা পর্যন্ত ডিউটি করতে হবে।
তবে আপনারা চাইলে বেশি বেতন পাওয়ার জন্য ওভারটাইম কাজ করতে পারেন। কারণ এখানে কনস্ট্রাকশন কাজে ওভারটাইম করার সুযোগ সুবিধা রয়েছে। এতে করে আপনার বেতন অনেকটা বৃদ্ধি করতে পারবেন। যারা কনস্ট্রাকশন কাজ সম্পর্কে ভালো মতো জানে না এবং নতুন কর্মীদের construction কাজে কম বেতন দেওয়া হয়।

আর যারা অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ও প্রফেশনাল কনস্ট্রাকশন কাজ করেন তাদের মাসিক বেতন সাধারণত ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা হয়ে থাকে। আর নতুন অবস্থায় হেল্পার কর্মীদের বেতন ৫০ হাজার থেকে ৬০ হাজার পর্যন্ত দেওয়া হয়ে থাকে। মালয়েশিয়াতে যদি আপনি কনস্ট্রাকশন কাজ করতে করতে অভিজ্ঞতা বাড়াতে পারেন তাহলে আপনার বেতন আরো বেড়ে যেতে পারে।

সেখানে আপনি দক্ষ কর্মী হয়ে কাজ করলে মাসিক ১ লক্ষ টাকা বেতনের কনস্ট্রাকশন চাকরি করতে পারবেন। অর্থাৎ মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজ করে মাসে এক লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন। এজন্য আমাদের মধ্যে যারা মালয়েশিয়া গিয়ে কনস্ট্রাকশন কাজ করতে চান, তারা অবশ্যই কনস্ট্রাকশন কাজ সম্পর্কিত বিস্তারিত জেনে এবং অভিজ্ঞতা অর্জন করে মালয়েশিয়াতে যাবেন। এতে করে বেশি বেতনের কনস্ট্রাকশনের চাকরি করতে পারবেন।

মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন ভিসা

আপনারা চাইলে মালয়েশিয়াতে ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় কনস্ট্রাকশন কাজের জন্য যেতে পারেন। তাছাড়া আরো অনেক ধরনের ভিসা রয়েছে সেগুলোতেও মালয়েশিয়াতে যেতে পারবেন। মালয়েশিয়াতে কাজের উদ্দেশ্যে যেতে হলে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে যেতে হয়। এজন্য আপনারা মালয়েশিয়াতে যাওয়ার জন্য ওয়ার্ক পারমিট ভিসা আবেদন করবেন। তবে অনেক সময় সরকারিভাবে কাজের উদ্দেশ্যে মালয়েশিয়ায় কর্মীদের পাঠানো হয়ে থাকে। 

সরকারিভাবে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার সুযোগ পেতে পারেন। তাছাড়াও মালয়েশিয়াতে যাওয়ার জন্য ফ্রি ভিসা রয়েছে। তবে মালয়েশিয়া ফ্রি ভিসা সার্ভিসটি বর্তমানে বন্ধ রয়েছে। মালয়েশিয়াতে কনস্ট্রাকশন কাজের জন্য কোম্পানি ভিসা যেতে পারেন। আপনি যে কোম্পানির আন্ডারে কনস্ট্রাকশন কাজ করবেন সেই বিষয়ে অনুযায়ী মালয়েশিয়ায় যেতে পারবেন। আর আপনারা ভিসা আবেদন এজেন্সির মাধ্যমে করতে পারবেন।

মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত

আপনারা কি মালয়েশিয়াতে গিয়ে ইলেকট্রিক কাজ করতে চান। তাহলে অবশ্যই মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে জানতে হবে। কারণ একজন ইলেকট্রিশিয়ানের বেতন মালয়েশিয়াতে কত হতে পারে সে সম্পর্কে জানতে পারলে আপনারা সঠিক প্রশিক্ষণ নিয়ে মালয়েশিয়াতে যেতে পারবেন। আমাদের দেশে অনেক ভালো ইলেকট্রিশিয়ান রয়েছে তারা চাইলে মালয়েশিয়াতে ইলেকট্রিক কাজ করে মাসিক ভালো বেতনে চাকরি করতে পারেন। মালয়েশিয়াতে ইলেকট্রিক কাজের জন্য বেসিক বেতন সাধারণত ৫০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা হয়ে থাকে। 

আর কোম্পানিতে ইলেকট্রিক কাজের আট ঘন্টা ডিউটি করতে হয়। তাছাড়া ওভারটাইম করার সুযোগ সুবিধা রয়েছে। ওভারটাইম করে আপনারা মাসে ১ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন, অর্থাৎ এক লক্ষ টাকা বেতন পর্যন্ত পাবেন। তবে যারা দীর্ঘদিন ইলেকট্রিক কোম্পানিতে কাজ করে থাকে তাদের বেতন ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায়। দীর্ঘ সময় ধরে কোম্পানিতে কাজ করলে আপনার  মাসিক বেতন ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। আর আপনারা কোম্পানিতে আপনাদের দক্ষতা দেখানোর চেষ্টা করবেন।

মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক ভিসার দাম কত

আপনারা যারা মালয়েশিয়াতে ইলেকট্রিক কাজের জন্য যেতে চান তারা অনেকেই মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক ভিসার দাম কত এ সম্পর্কে জানতে চান। তাদের জন্য আমরা এখন মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক ভিসার দাম কত এ সম্পর্কে কিছু আলোচনা করব। সাধারণত মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক ভিসার দাম ৬০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা হয়ে থাকে। তবে সকল খরচ মিলিয়ে মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক ভিসার দাম হয় চার লক্ষ টাকা। বিমান ভাড়া এবং ভিসা সহ সকল খরচ একত্রে চার লক্ষ টাকা।

মালয়েশিয়া কাজের বেতন সম্পর্কিত সাধারণ জিজ্ঞাসা ও প্রশ্ন(FAQ)

প্রশ্নঃমালয়েশিয়া ক্লিনার ভিসা বেতন কত?
উত্তরঃ মালয়েশিয়া ক্লিনার ভিসার বেতন সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকার মধ্যে হয়ে থাকে।

প্রশ্নঃমালয়েশিয়া কি খোলা আছে?
উত্তরঃ মালয়েশিয়াতে যাওয়ার জন্য প্রায় সকল ধরনের ভিসা খোলা রয়েছে। মালয়েশিয়াতে কাজের উদ্দেশ্যে গেলে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা, ভ্রমণের জন্য আপনারা টুরিস্ট ভিসা নিতে পারেন, চিকিৎসার জন্য মেডিকেল ভিসা তাছাড়া আরো অনেক ধরনের ভিসা চালু রয়েছে।

প্রশ্নঃমালয়েশিয়ায় ওয়ার্ক পারমিটের নূন্যতম বেতন কত?
উত্তরঃ মালয়েশিয়া ওয়ার্ক পারমিটের কাজের ন্যূনতম বেতন ৭০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা। 

প্রশ্নঃমালয়েশিয়া প্রবাসীদের বেতন কত?
উত্তরঃ মালয়েশিয়া প্রবাসীদের গড় বেতন বাংলাদেশি টাকায় ১ লক্ষ টাকা।

প্রশ্নঃমালয়েশিয়ায় ওয়ার্ক পারমিট পেতে কতদিন লাগে?
উত্তরঃ মালয়েশিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা প্রসেসিং হতে সময় সময় লাগে ৭ দিন। অর্থাৎ আপনি এক সপ্তার মধ্যেই ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পেতে পারেন।

শেষ কথা

আজকের সম্পূর্ণ পোস্টটিতে মালয়েশিয়া কনস্ট্রাকশন কাজের বেতন কত ও মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন কত এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। আশা করছি প্রিয় বন্ধুরা আপনারা ভালোভাবেই মালয়েশিয়া কাজের বেতন কত এ সম্পর্কে সকল তথ্য জেনে গেছেন। আপনারা মালয়েশিয়া কাজের উদ্দেশ্যে যাওয়ার আগে অবশ্যই যে কোন কাজের প্রশিক্ষণ নিয়ে যাবেন। কারণ মালয়েশিয়াতে দক্ষ শ্রমিকদের বেশি মূল্যায়ন করা হয়ে থাকে। যার কারণে দক্ষ শ্রমিকদের বেশি বেতন দেওয়া হয়।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url