১০টি জনপ্রিয় উপায়ে ঘরে বসে আয় করুন ১৫০০০ থেকে ২০০০০ টাকা প্রতি মাসে

আপনারা ঘরে বসে কিভাবে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন তা সম্পর্কে আজকের পোস্টটিতে জানানোর চেষ্টা করব। অনেকেই আছে সঠিক গাইড লাইনের অভাবে ঘরে বসেই টাকা ইনকাম করতে পারেনা। তাদের কথা চিন্তা করে আমরা আজকের এই পোস্টে ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সম্পর্কে তুলে ধরবো।
ঘরে বসে আয় করুন ১৫০০০ ২০০০০ টাকা প্রতি মাসে
পোস্ট সূচিপত্রঃপ্রিয় বন্ধুরা আপনারা যদি ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে চান তাহলে অবশ্যই পোস্টটি সম্পূর্ণ মনোযোগ সহকারে পড়ুন। কারণ আমরা আপনাদের সামনে কিছু উপায় তুলে ধরব যেই উপায়গুলো আপনি অবলম্বন করে খুব সহজেই ঘরে বসে ১৫০০০-২০০০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

উপস্থাপনা

আপনার এই আধুনিক যুগে খুব সহজে ঘরে বসে অনলাইনে কাজ করে প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারেন। তবে কোন উপায়ে আপনি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করবেন সেই সম্পর্কে আপনাদের জেনে রাখতে হবে। এমন অনেক ব্যক্তি রয়েছে যারা সঠিক উপায় এর অভাবে অনলাইন থেকে আয় করতে পারে না। 
তাদের জন্য আমরা আজকের এই পোস্টটিতে প্রতি মাসে ঘরে বসে আয় করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করব। আপনারা যে কেউ ঘরে বসে এখন খুব সহজেই ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনাদের উপায় গুলো ভালোভাবে জেনে কাজ করতে হবে। তাই ঘরে বসে আয় করার জন্য উপায় গুলো সম্পর্কে জানতে পোষ্টটি সম্পূর্ণ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন।

ঘরে বসে আয় করুন ১৫০০০ ২০০০০ টাকা প্রতি মাসে

প্রিয় বন্ধুরা আপনারা কিভাবে ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারেন তার উপায় সম্পর্কে এখন আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করব। আপনারা যদি প্রতিমাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাদের অনলাইনে কাজ করতে হবে। এছাড়া পাশাপাশি আপনি অফলাইনে কাজ করেও ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। 
অনলাইন থেকে ইনকাম করার জন্য আপনার একটি স্মার্টফোন অথবা কম্পিউটার থাকতে হবে। এই দুটি ডিভাইসের মধ্যে যেকোন একটি থাকলেই আপনি অনলাইনে কাজ করতে পারবেন। তবে সবচেয়ে সুবিধা হয় কম্পিউটারে কাজ করা। তাই আপনারা কম্পিউটারে অনলাইনের কাজগুলো করার চেষ্টা করবেন। আপনাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছে যাদের কম্পিউটার বা মোবাইল ফোন রয়েছে, 
কিন্তু তারা অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারে না। কারণ তাদের সঠিক গাইডলাইনের অভাব রয়েছে, আমরা আজকের এই পোস্টে আপনাদের ঘরে বসে আয় করার সঠিক গাইড লাইন তুলে ধরব। অর্থাৎ আপনি কিভাবে ঘরে বসেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করবেন তার বিভিন্ন উপায় আলোচনা করব। তাই সকল কিছু বিস্তারিত জানতে পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন। 
ঘরে বসে প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে হলে আপনাদের অবশ্যই ফ্রিল্যান্সিং করতে হবে। একমাত্র অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং করার মাধ্যমেই আপনি ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। এজন্য আপনাদের ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরটি কাজ করার জন্য বেছে নিতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে অনেকগুলো বিভাগ রয়েছে। সেখানে আপনার যেকোন একটি বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে হবে। 
মার্কেটপ্লেসে কাজ করার জন্য ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট গুলোতে একাউন্ট খুলতে হয়। তবে তার আগে আপনার বিষয়গুলো সম্পর্কে জেনে যেকোনো একটি বিষয়ে ভালো দক্ষতা অর্জন করে কাজ করতে হবে। চলুন আর কথা না বাড়িয়ে ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করার কিছু জনপ্রিয় ও সহজ উপায় গুলো জেনে নেই। এই উপায় গুলোর মাধ্যমে আপনি সহজেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন প্রতি মাসেই।
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন
  • ভিডিও এডিটিং
  • সিপিএ মার্কেটিং
  • লেখালেখি করে আয়
  • কন্টেন্ট রাইটিং
  • অনলাইন ফুড ডেলিভারি
  • ব্লগিং
  • ফেসবুক মার্কেটিং করে আয়
  • অনলাইনে পণ্য বিক্রয়
  • ড্রপ শিপিং
আপনারা এই উপরোক্ত উপায় গুলো অবলম্বন করে প্রতি মাসেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ঘরে বসে আয় করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনাদের বিষয়গুলো সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে। উপরে দেখানো উপায় গুলো সাধারণত বেশিরভাগই ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরের অন্তর্ভুক্ত। তাই আপনাদের ফ্রিল্যান্সিং বিভাগগুলো সম্পর্কেও ভালোভাবে জেনে রাখতে হবে। তবে চলুন উপরে দেখানো উপায় গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু তথ্য জেনে নেই।

গ্রাফিক্স ডিজাইন

বর্তমানে এই আধুনিক যুগে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে সবচেয়ে ডিমান্ডেবল কাজ হল গ্রাফিক্স ডিজাইন। ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে এই কাজটির চাহিদা খুবই বেশি। যার কারণে এই সেক্টরে বর্তমানে কাজ পাওয়া তেমন মুশকিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে যারা গ্রাফিক্স ডিজাইন এক্সপার্ট তারা নিশ্চয়ই এই সেক্টরে কাজ করে সফলতা অর্জন করেছে। 

আপনাদের মধ্যে কেউ যদি গ্রাফিক্স ডিজাইনের এক্সপার্ট হয়ে থাকেন তাহলে আপনারাও এই সেক্টরে কাজ করে প্রতি মাসে ঘরে বসেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। বর্তমানে কোম্পানিগুলো তাদের পণ্যের বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের ব্যানার , পোস্টার বানিয়ে থাকে। আর এইগুলো বানানোর জন্য গ্রাফিক ডিজাইনারদের প্রয়োজন হয়। 
তাই কোম্পানিগুলো বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের নিয়োগ দিয়ে থাকে। তাছাড়া বিভিন্ন বিদেশি ক্লায়েন্টরা গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজ দিয়ে থাকে। আপনারা তাদের সাথে কাজ করে প্রতি মাসেই ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। মূলত আপনি গ্রাফিক ডিজাইন কাজ করে অনেক সময় বিভিন্ন কোম্পানির সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে কাজ করতে পারেন। 

এতে করে আপনি ভালো বেতনের অনলাইনে চাকরি করতে পারবেন। তবে আপনাদের এই কাজটি করে ইনকাম করার জন্য অবশ্যই কাজের প্রতি দক্ষতা থাকতে হবে। আপনি প্রথমে গ্রাফিক ডিজাইন সম্পর্কে ভালোভাবে জানবেন এবং শিখবেন। 

তারপর দক্ষতা অর্জন করে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসগুলোতে একাউন্ট খুলে কাজ খোঁজা শুরু করবেন। এভাবে প্রথমদিকে কাজ খুঁজতে হয়। একবার আপনার কাজের দক্ষতার পরিচয় দিতে পারলেই আপনি এই সেক্টর থেকে প্রতিমাসে কমপক্ষে ২০ হাজার টাকাতো অনায়াসেই ইনকাম করতে পারবেন।

ভিডিও এডিটিং

ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে ভিডিও এডিটিং এর চাহিদা খুবই বেশি। কারণ বর্তমান সময়ে ইউটিউবারও ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। অনেকে ফেসবুকে বা youtube এ ভিডিও বানিয়ে ইনকাম করে থাকে। ইউটিউবে বা ফেসবুকে ভিডিও বানিয়ে ইনকাম করার জন্য ভিডিও ভালোভাবে এডিট করতে হয় এবং ভিডিওর কোয়ালিটি উন্নত করতে হয়। এজন্য একজন ভালো ভিডিও এডিটরের প্রয়োজন হয়। 

ভিডিও এডিট করার জন্য অনেক কোম্পানি ভিডিও এডিটরের নিয়োগ দিয়ে থাকে, এর ফলে আপনি তাদের সাথে কাজ করে প্রতি মাসেই অতি সহজেই ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। তাছাড়াও অনেক ইউটিউবার তাদের ইউটিউব চ্যানেল ম্যানেজমেন্ট ও ভিডিও এডিট করার জন্য ভিডিও এডিটর নিয়োগ দিয়ে থাকে। 
আপনারা তাদের সাথে ভিডিও এডিটিং কাজ করার মাধ্যমে ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন। আপনি যদি ভিডিও এডিট করে প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে অবশ্যই ভিডিও এডিটিং এ এক্সপার্ট হতে হবে। অর্থাৎ ভিডিও এডিটিং এ আপনার দক্ষতা থাকতে হবে তাহলেই আপনি মার্কেটপ্লেস থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

সিপিএ মার্কেটিং করে ঘরে বসে আয় করুন ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা প্রতি মাসে

আমরা ঘরে বসেই সিপিএ মার্কেটিং করে অনলাইনে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে হলে আপনি এই সিপিএ মার্কেটিং সেক্টরে কাজ করতে পারেন। তবে আপনাকে সিপিএ মার্কেটিং এর সম্পর্কে জানতে হবে এবং এই কাজের প্রতি দক্ষতা অর্জন করতে হবে। 

তাহলে আপনি সিপিএ মার্কেটিং করে অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি সিপিএম মার্কেটিং ইউটিউবে অথবা গুগলের সার্চ করে শিখে নিতে পারেন। বর্তমানে ইউটিউবে বা google এ বিভিন্ন ধরনের ফ্রি কোর্স রয়েছে যেখানে এগুলো সম্পর্কে শেখানো হয়ে থাকে। আপনারা সেই ফ্রি কোর্সগুলো করতে পারেন। 

তাছাড়াও সিপিএ মার্কেটিং ভালোভাবে শেখার জন্য আপনার আশেপাশে থাকা ফ্রিল্যান্সিং প্রতিষ্ঠানগুলোতে কোর্স করতে পারেন। আপনার এলাকার আশেপাশে কোন প্রতিষ্ঠানটি ভালো ফ্রিল্যান্সিং বিষয়গুলো শিখিয়ে থাকে তা সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে ভর্তি হওয়ার চেষ্টা করবেন। কারণ বর্তমানে অনেক ফ্রিল্যান্সিং প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা ভালোভাবে কাজ শিখাতে পারেনা বরং শেখানো শেষ হয়ে গেলে ইনকামের নিশ্চয়তা দিতে পারেনা। 

এসব প্রতিষ্ঠান থেকে দূরে থাকবেন এবং সঠিকভাবে খোঁজখবর নিয়ে ফ্রিল্যান্সিং প্রতিষ্ঠানগুলোতে ভর্তি হবেন। সিপিএ মার্কেটিং বিষয়টি সম্পর্কে যদি আপনি দক্ষতা অর্জন করেন তাহলে খুব সহজেই ঘরে বসেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

লেখালেখি করে ঘরে বসে ইনকাম

আপনারা কিন্তু ঘরে বসে লেখালেখি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে অনলাইন থেকে ইনকাম করার সবচেয়ে সহজ মাধ্যম হলো লেখালেখি করা। আপনি লেখালেখি করে প্রতি মাসেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার বেশি আয় করতে পারবেন। আপনি যদি একজন প্রফেশনাল লেখক হয়ে থাকেন তাহলে লেখালেখি করে প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন। 

ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে আপনি লেখালেখির কাজ করতে পারবেন। আর ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে খুব সহজেই এখন লেখালেখির কাজ পাওয়া যায়। তাছাড়া আপনারা চাইলে অর্ডিনারি আইটি ওয়েবসাইটে লেখালেখির কাজ করে প্রতি মাসে ১৫০০০ টাকা প্রথম ইনকাম করতে পারেন। অর্ডিনারি আইটি ওয়েবসাইটে লেখালেখির কাজ করার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। 

তবে জেনে রাখা ভালো আপনাকে প্রথম দিকে লেখালেখির কাজ শিখতে হবে। তবে আপনি যদি আগে থেকেই লেখালেখির কাজ করে থাকেন তাহলে খুব সহজেই আমাদের ওয়েবসাইট গুলোতে লেখালেখির কাজ করে মাসে ১৫০০০ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন। লেখালেখি করার জন্য তেমন কোন দক্ষতার প্রয়োজন হয় না, শুধু লেখালেখি করার সামান্য জ্ঞান ও ডিজিটাল ডিভাইস থাকলেই হবে। 

এখানে ডিজিটাল ডিভাইস বলতে মোবাইল ফোন অথবা কম্পিউটারকে বোঝানো হয়েছে। আপনি মোবাইল ফোন বা কম্পিউটারে লেখালেখির কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে আপনার মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে। আপনি পৃথিবীর যেকোন প্রান্ত থেকে ঘরে বসে অনলাইনে লেখালেখির কাজ করে টাকা আয় করতে পারবেন। 

শুধুমাত্র ল্যাপটপ বা কম্পিউটার থাকলেই সেটি দিয়ে আপনি লেখালেখি করে প্রতি মাসে অন্তত ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে সক্ষম হবেন। তাই দেরি না করে এখনই লেখালেখির কাজ করা শুরু করুন। এভাবে ঘরে বসে আয় করুন ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা প্রতি মাসে।

কন্টেন্ট রাইটিং

বর্তমানে ঘরে বসে আয় করার সবচেয়ে সহজ এবং জনপ্রিয় উপায় হল কন্টেন্ট রাইটিং করা। আপনি আমাদের দেশে অথবা বিদেশে যেকোন ওয়েবসাইটে কন্টেন্ট রাইটার হিসেবে কাজ করতে পারেন। এতে করে আপনি অনায়াসেই প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার বেশি আয় করতে পারবেন। এই কাজটি অনলাইনে ঘরে বসেই কম্পিউটারে বা ল্যাপটপে করতে হয়। কনটেন্ট লেখার জন্য তেমন অভিজ্ঞতা বা দক্ষতার প্রয়োজন পড়ে না। 

তবে কনটেন্ট রাইটিং করে অনলাইনে বেশি ইনকাম করতে চাইলে আপনাকে ইংলিশে কন্টেন্ট লিখতে হবে। কারণ বর্তমানে ইংলিশ কন্টেন্ট এর চাহিদা রয়েছে। তাই আপনাদের অবশ্যই ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ শিখতে হবে, অর্থাৎ ইংলিশে দক্ষতা থাকতে হবে তাহলে আপনি ইংলিশ কনটেন্ট রাইটিং করে প্রতি মাসেই ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

এর পাশাপাশি যারা বাংলা কনটেন্ট রাইটিং করতে পারেন তারা বাংলা ওয়েবসাইটগুলোতে কাজ করতে পারেন। আপনারা চাইলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করে কনটেন্ট রাইটিং এর কাজ নিতে পারেন। আমরা আপনাদের কন্টেন্ট রাইটিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানিয়ে কাজ দেওয়ার চেষ্টা করব।

অনলাইন ফুড ডেলিভারি

আপনি চাইলে অনলাইনে ফুড ডেলিভারি করে প্রতি মাসেই ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। ধরুন আপনি বাড়িতে বসে সুস্বাদু খাবার বানিয়ে সেটি অনলাইনের বিভিন্ন জায়গায় ডেলিভারি দেওয়ার মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এখানে আপনার নিজে ডেলিভারি করতে হচ্ছে না, আপনি অন্য কর্মীকে দিয়ে ফুড ডেলিভারি করিয়ে টাকা ইনকাম করছেন। 

প্রথমত আপনি ঘরে বসেই খাবার তৈরি করে সেটি অন্যজনকে দিয়ে ডেলিভারি করাচ্ছেন। তাহলে বুঝতে পারছেন আপনাকে এখানে ঘরে বসে কাজ করতে হচ্ছে। আর ফুড ডেলিভারি ম্যানকে সামান্য কিছু বেতন দিতে হবে। এভাবে আপনি ঘরে বসে খাবার তৈরি করে অনলাইনে ফুড ডেলিভারি দিতে পারেন। বর্তমানে এই ধরনের কাজ করে অনেকেই আর্থিকভাবে সফল হচ্ছে। 

কারণ বর্তমান সময়ে অনলাইনে খাবার অর্ডার করা চাহিদা বেরিয়ে চলেছে। এখন মানুষ বাইরে থেকে অনলাইনে মাধ্যমে খাবার অর্ডার করে থাকে। যার কারণে অনলাইন ফুড ডেলিভারি কাজটির চাহিদা খুবই বেড়ে চলেছে। তাই আপনারাও যদি প্রতি মাসে ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা করতে চান তাহলে অনলাইন ফুড ডেলিভারি এর কাজ করতে পারেন।

ব্লগিং করে ঘরে বসে ইনকাম

আপনারা কিন্তু ঘরে বসে ব্লগিং করে প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন। বর্তমান সময়ে ব্লগিং করে অনেকেই লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছে। আপনারাও করতে পারবেন যদি ব্লগিং সম্পর্কে জেনে থাকেন। ব্লগিং করার জন্য অনেকগুলো বিষয়ের প্রতি ধারণা থাকতে হয়। ব্লগিং যেহেতু ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরের একটি অংশ, তাই আপনাকে ব্লগিং বিষয়টি সম্পর্কে জেনে এবং শিখে কাজ করতে হবে। 

ব্লগিং শেখার জন্য আপনি বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠানে কোর্স করতে পারেন। বর্তমানে অর্ডিনারি আইটি ব্লগিং কোর্স করিয়ে থাকে। আপনারা তাদের কাছ থেকে ব্লগিং শিখে ঘরে বসেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারেন। তাছাড়াও তাদের ওয়েবসাইটে অথবা তাদের সাথে কাজ করে প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকার মধ্যে ইনকাম করতে পারবেন। 

তাই দেরি না করে আপনারা এখন থেকে ব্লগিং বিষয়টি সম্পর্কে জানুন এবং শিখুন। আপনারা চাইলে ইউটিউব প্লাটফর্ম থেকে ফ্রিতে ব্লগিং শিখতে পারেন। ইউটিউবে সেখানে অনেকেই ফ্রিতে ব্লগিং কোর্স করিয়ে থাকে। তাদের ভিডিও গুলো দেখে আপনি ধীরে ধীরে শিখতে পারেন। ব্লগিংয়ে আপনি দক্ষতা অর্জন করলে কাজ করে অনায়াসেই মাসে 15 থেকে 20 হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

ফেসবুক মার্কেটিং করে আয়

বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় কাজ হল ফেসবুক মার্কেটিং। আপনারা চাইলে ফেসবুক মার্কেটিং করে খুব সহজেই ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারেন। এই কাজগুলো সাধারণত অনলাইনে করতে হয়। তাই আপনাদের মোবাইল ফোন বা কম্পিউটারের প্রয়োজন হবে। আর আপনার ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে। ফেসবুক মার্কেটিং করে আপনি প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন। 

ফেসবুক মার্কেটিং করার জন্য আপনার ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জানতে হবে। ফেসবুক মার্কেটিং হল ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি অংশ। তাই প্রথমে আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জানতে হবে তাহলে আপনি ফেসবুক মার্কেটিং করতে পারবেন। বর্তমানে অনেক ফ্রিল্যান্সিং প্রতিষ্ঠান ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করিয়ে থাকে, আপনারা তাদের থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জেনে নিতে পারেন।
ফেসবুক মার্কেটিং করে আয়
তাছাড়া সরাসরি ফেসবুক মার্কেটিং কোর্সটিও করতে পারেন। ফেসবুক মার্কেটিং কোর্স বর্তমানে ইউটিউবেই ফ্রিতে আপনি করতে পারবেন। অনেক ইউটিউবার ফেসবুক মার্কেটিং ফ্রি করিয়ে থাকে। আপনারা সেখান থেকে শিখে বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোতে কাজ নিতে পারেন। এভাবে আপনি ঘরে বসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন।

অনলাইনে পণ্য বিক্রয়

আপনারা অনলাইনে পণ্য বিক্রয়ের ব্যবসা করে প্রতি মাসেই ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে সক্ষম হবেন। যদি আপনার ফেসবুক পেজ থাকে তাহলে আপনি সেই ফেসবুক পেজে অনলাইনে পণ্য বিক্রির কাজ করতে পারেন। আপনি একটি অনলাইনে ব্যবসা দাঁড় করাতে করেন। অনলাইনে পণ্য বিক্রি করতে হলে আপনাকে ফেসবুকের মাধ্যমে বা ইউটিউব এর মাধ্যমে বিক্রি করতে হবে। তাই আপনাদের একটি ফেসবুক পেজ থাকতে হবে। 

সেই ফেসবুক পেজে প্রোডাক্ট মার্কেটিং করে সেগুলো বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে অনেকে এখন অনলাইনে ইলেকট্রনিক আইটেম বিক্রি করে মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা ইনকাম করছে। অনলাইনে পণ্য বিক্রি করার জন্য তেমন কোন অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয় না, 

শুধুমাত্র আপনার ফেসবুক পেজ হলেই আপনি সেখানে পণ্যর বিজ্ঞাপন দিয়ে এবং সেগুলো বিক্রি করার মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। আশা করছি আপনারা বুঝতে পেরেছেন। এই কাজটি করে আপনারা খুব সহজেই ঘরে বসে টাকা আয় করতে পারবেন। তাই চিন্তা না করে এখনই অনলাইনে পণ্য বিক্রয় বা অনলাইন ব্যবসা করার উদ্যোগ নিয়ে নিন।

ড্রপ শিপিং করে ঘরে বসেই আয়

আপনারা চাইলে ড্রপ শিপিং করার মাধ্যমে অনলাইনে ঘরে বসে প্রতি মাসে ১৫০০০ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন। এজন্য আপনাদের অবশ্যই ড্রপ শিপিং সম্পর্কে জানতে হবে। ড্রপ শিপিং বিজনেস করতে তেমন কোন অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই। ড্রপ শিপিং করার জন্য আপনার একটি ওয়েবসাইট অথবা ফেসবুক পেজের প্রয়োজন হতে পারে। 

বর্তমানে ইউটিউব চ্যানেলগুলোতে অনেকেই ফ্রিতে ড্রপ শিপিং কিভাবে করতে হয় তা শিখিয়ে থাকে আপনারা তাদের ভিডিওগুলো দেখে শিখে নিতে পারেন। ড্রপ শিপিং বলতে অন্যজনের প্রোডাক্ট বিক্রি করে দেওয়া। আপনি নিজের ওয়েবসাইট বা ফেসবুক পেজে অন্যজনের প্রোডাক্ট বিক্রি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন, আর এটিকেই ড্রপ শিপিং বলা হয়ে থাকে। 

ধরুন আপনার একটি ফেসবুক পেজ রয়েছে, সেখানে আপনি দারাজ অথবা আলিবাবা ডটকম থেকে যেকোনো একটি প্রোডাক্টের ডিটেলস সংগ্রহ করে আপনার ওয়েবসাইট অথবা ফেসবুক পেজে পাবলিশ করবেন। এখন যখন কোন গ্রাহক আপনার ফেসবুক পেজ অথবা ওয়েবসাইট থেকে পণ্য দেখে কেনার জন্য অর্ডার অপশনে ক্লিক করবে। তখন সেই অর্ডারটি আপনার কাছে আসবে। 

আর এই অর্ডারটি আপনি কমপ্লিট করার জন্য আপনি যেখান থেকে প্রোডাক্ট ডিটেলস নিয়েছেন সেই ওয়েবসাইটে অর্ডার কমপ্লিট করতে পারেন। আপনি তাদের কাছ থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন নিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারেন। এভাবে আপনি ঘরে বসে ড্রপ শিপিং করে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন।

লেখকের শেষ কথা

তাহলে আশা করছি আপনারা আজকের এই সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ে ঘরে বসে প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায় সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আপনি কিভাবে ঘরে বসে ১৫০০০ ২০০০০ টাকা প্রতি মাসে আয় করতে পারেন তা সম্পর্কে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। আপনাদের যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে বা পরিচিতদের সাথে পোস্টটি শেয়ার করুন। তারাও ইনকাম করার উপায় গুলো জেনে প্রতি মাসে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করতে পারবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url